০৯:৪৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪

অবতরণের সময় কলকাতা থেকে আসা বিমানের চাকায় ফাটল

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৭:০৯:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩
  • / ৯৫ বার পড়া হয়েছে

কলকাতা থেকে ঢাকাগামী বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের একটি যাত্রীবাহী বিমান ঢাকায় অবতরণের সময় মাঝ আকাশে একটি চাকার টায়ার ফেটে যায়। সোমবার (৬ মার্চ) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, সোমবার কলকাতা থেকে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসা ঢাকা-কলকাতা রুটের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বিজি ৩৯২ ফ্লাইটটি সকালে ঢাকায় ফিরছিল। কলকাতা থেকে ফেরার সময় ঢাকায় সকাল ১০টা ৫ মিনিটে অবতরণের আগে পেছনের একটি টায়ার ফেটে যায়।

মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম বলেন, টায়ার ফেটে গেলেও পাইলটের দক্ষতা ও পেছনের অন্যান্য চাকা ঠিক থাকায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। বিমানটিতে ৭২ জন যাত্রী ছিলেন বলে জানিয়েছে শাহজালাল বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। যাত্রীরা সবাই নিরাপদে আছেন।

বিমানবন্দর সূত্র জানায়, ফ্লাইটটি কানাডা থেকে আমদানি করা ড্যাশ ৮-৪০০ মডেলের এয়ারক্রাফট দ্বারা পরিচালিত হচ্ছিল। অবতরণের সময় যেকোনো বড় দুর্ঘটনা এড়াতে বিমানবন্দরে ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট উপস্থিত ছিল। তবে তাদের কাজ করতে হয়নি।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

অবতরণের সময় কলকাতা থেকে আসা বিমানের চাকায় ফাটল

আপডেট সময় ০৭:০৯:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩

কলকাতা থেকে ঢাকাগামী বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের একটি যাত্রীবাহী বিমান ঢাকায় অবতরণের সময় মাঝ আকাশে একটি চাকার টায়ার ফেটে যায়। সোমবার (৬ মার্চ) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হযরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, সোমবার কলকাতা থেকে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসা ঢাকা-কলকাতা রুটের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বিজি ৩৯২ ফ্লাইটটি সকালে ঢাকায় ফিরছিল। কলকাতা থেকে ফেরার সময় ঢাকায় সকাল ১০টা ৫ মিনিটে অবতরণের আগে পেছনের একটি টায়ার ফেটে যায়।

মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম বলেন, টায়ার ফেটে গেলেও পাইলটের দক্ষতা ও পেছনের অন্যান্য চাকা ঠিক থাকায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। বিমানটিতে ৭২ জন যাত্রী ছিলেন বলে জানিয়েছে শাহজালাল বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। যাত্রীরা সবাই নিরাপদে আছেন।

বিমানবন্দর সূত্র জানায়, ফ্লাইটটি কানাডা থেকে আমদানি করা ড্যাশ ৮-৪০০ মডেলের এয়ারক্রাফট দ্বারা পরিচালিত হচ্ছিল। অবতরণের সময় যেকোনো বড় দুর্ঘটনা এড়াতে বিমানবন্দরে ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট উপস্থিত ছিল। তবে তাদের কাজ করতে হয়নি।