১০:৩৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪

‘অলিম্পিক বাছাই খেলতে মন্ত্রণালয়ের কাছে অর্থ চাওয়া উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৭:১৩:১৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৬৩ বার পড়া হয়েছে

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেছেন, অলিম্পিক বাছাই খেলতে মন্ত্রণালয়ের কাছে অর্থ চাওয়া উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। রোববার (৮ এপ্রিল) দুপুরে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভা শেষে সাফ জয়ী নারী দলের প্যারিস অলিম্পিক বাছাইপর্ব খেলতে না যেতে পারার বিষয়ে জানতে চাইলে এই মন্তব্য করেন তিনি।

জাহিদ আহসান বলেন, কারও দোষ বা ভুল যদি অন্য কারও কাঁধে চাপিয়ে দেওয়ার ইচ্ছে থাকে, তাহলে অনেকভাবে দেওয়া যায়। সেটা কিন্তু আমরা এই নারী ফুটবল দলের ক্ষেত্রে দেখতে পেলাম। যারা আমাদের জন্য এত বড় অর্জন নিয়ে এসেছে। সারাদেশকে যারা সম্মানিত করেছে। তারা অলিম্পিক কোয়ালিফাই ম্যাচে অংশগ্রহণ করতে পারবে না এর চেয়ে কষ্টের কিছু হতে পারে না। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী, নির্বাচিত কেউ কথা বলেনি, ফেডারেশনে চাকরি করে এমন একজন সরকারকে দোষারোপ করে বক্তব্য দিয়েছেন।

২৭ তারিখ চিঠি পেলাম ২৯ তারিখ সম্মেলন করলেন, তারা টাকা পাওয়ার কিছু দেখছেন না। এক দিনের মধ্যে তারা কিভাবে বক্তব্য দেয়। আমরা কাজ শুরু করেছিলাম। অর্থ মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছিলাম। সরকারকে সময়ই দেওয়া হলো না। এক ধরনের ধৃষ্টতাপূর্ণ কথা বললেন।ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী দাবি, নিজের দোষ অন্যের কাঁধে চাপানোর চেষ্টা করছে ফুটবল ফেডারেশন। মিডিয়ার নিউজের মন্তব্যে সবাই ফুটবল ফেডারেশনকে দোষারোপ করেছে।

জাহিদ আহসান রাসেল ভাষ্য, বাফুফে ইচ্ছাকৃতভাবেই কাজটি করেছে, আমরা তাদের পাশে থাকতাম। স্পনসর প্রতিষ্ঠান প্রস্তুত ছিল। অন্যায় সিদ্ধান্ত নিয়ে মেয়েদের বঞ্চিত করলেন। ভারত কোয়ালিফাই করেছে, আমাদের সম্ভাবনা ছিল। সেই সম্ভাবনাকে বিনষ্ট করলেন। কেন ইচ্ছাকৃতভাবে কাজটি করলেন, ভাবমূর্তির সংকটে ফেললেন। এত অল্প টাকার জন্য যেতে পারবে না, এর পেছনে অন্য কিছু রয়েছে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

‘অলিম্পিক বাছাই খেলতে মন্ত্রণালয়ের কাছে অর্থ চাওয়া উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’

আপডেট সময় ০৭:১৩:১৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ এপ্রিল ২০২৩

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বলেছেন, অলিম্পিক বাছাই খেলতে মন্ত্রণালয়ের কাছে অর্থ চাওয়া উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। রোববার (৮ এপ্রিল) দুপুরে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের নির্বাহী কমিটির সভা শেষে সাফ জয়ী নারী দলের প্যারিস অলিম্পিক বাছাইপর্ব খেলতে না যেতে পারার বিষয়ে জানতে চাইলে এই মন্তব্য করেন তিনি।

জাহিদ আহসান বলেন, কারও দোষ বা ভুল যদি অন্য কারও কাঁধে চাপিয়ে দেওয়ার ইচ্ছে থাকে, তাহলে অনেকভাবে দেওয়া যায়। সেটা কিন্তু আমরা এই নারী ফুটবল দলের ক্ষেত্রে দেখতে পেলাম। যারা আমাদের জন্য এত বড় অর্জন নিয়ে এসেছে। সারাদেশকে যারা সম্মানিত করেছে। তারা অলিম্পিক কোয়ালিফাই ম্যাচে অংশগ্রহণ করতে পারবে না এর চেয়ে কষ্টের কিছু হতে পারে না। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী, নির্বাচিত কেউ কথা বলেনি, ফেডারেশনে চাকরি করে এমন একজন সরকারকে দোষারোপ করে বক্তব্য দিয়েছেন।

২৭ তারিখ চিঠি পেলাম ২৯ তারিখ সম্মেলন করলেন, তারা টাকা পাওয়ার কিছু দেখছেন না। এক দিনের মধ্যে তারা কিভাবে বক্তব্য দেয়। আমরা কাজ শুরু করেছিলাম। অর্থ মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছিলাম। সরকারকে সময়ই দেওয়া হলো না। এক ধরনের ধৃষ্টতাপূর্ণ কথা বললেন।ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী দাবি, নিজের দোষ অন্যের কাঁধে চাপানোর চেষ্টা করছে ফুটবল ফেডারেশন। মিডিয়ার নিউজের মন্তব্যে সবাই ফুটবল ফেডারেশনকে দোষারোপ করেছে।

জাহিদ আহসান রাসেল ভাষ্য, বাফুফে ইচ্ছাকৃতভাবেই কাজটি করেছে, আমরা তাদের পাশে থাকতাম। স্পনসর প্রতিষ্ঠান প্রস্তুত ছিল। অন্যায় সিদ্ধান্ত নিয়ে মেয়েদের বঞ্চিত করলেন। ভারত কোয়ালিফাই করেছে, আমাদের সম্ভাবনা ছিল। সেই সম্ভাবনাকে বিনষ্ট করলেন। কেন ইচ্ছাকৃতভাবে কাজটি করলেন, ভাবমূর্তির সংকটে ফেললেন। এত অল্প টাকার জন্য যেতে পারবে না, এর পেছনে অন্য কিছু রয়েছে।