১১:০২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪

অস্ত্র মামলায় আপিল বিভাগে সাহেদের জামিন স্থগিত

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০১:০৬:৫৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ ২০২৩
  • / ৫৭ বার পড়া হয়েছে

অস্ত্র মামলায় রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ করিমের জামিন স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ। মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. নুরুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন ৩ সদস্যের আপিল বিভাগ হাইকোর্টের দেওয়া জামিনের বিরুদ্ধে এ আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পী এবং সাহেদের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এস এম শাহজাহান। সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে ৩২টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে ২০২০ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর অস্ত্র আইনের মামলায় তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মামলায় সাহেদকে ১৮৭৮ সালের অস্ত্র আইনের ১৯(ক) ধারায় যাবজ্জীবন ও (চ) ধারায় সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

দুটি সাজা একত্রে চলবে বলেও রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া ওই অস্ত্র বাজেয়াপ্ত ও যে গাড়ি থেকে অস্ত্রটি উদ্ধার করা হয়েছে, তার মালিকানা যাচাই করে পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। বিচারিক আদালতের রায়ের পরে হাইকোর্টে আপিল করে জামিন চান সাহেদ। সেই আবেদনের শুনানিও নিয়ে গত বছরের ৭ জুন তাকে জামিন দেন হাইকোর্ট।

পরে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে ১২ জুন তা স্থগিত করে চেম্বার আদালত। এরপর রাষ্ট্রপক্ষ লিভ টু আপিল করেন। সেই আপিলের শুনানি হয়। মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের ১৫ জুলাই সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে সাহেদকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। এরপর তাকে নিয়ে উত্তরায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্র উদ্ধার করে সংস্থাটি।

পরে উত্তরা পশ্চিম থানায় র‌্যাব অস্ত্র আইনে একটি মামলা করে। একই বছরের ৬ জুলাই রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর শাখায় অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযানে করোনা ভাইরাস পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট, করোনা চিকিৎসার নামে রোগীদের কাছ থেকে অর্থ আদায়সহ নানা অনিয়ম ধরা পড়ে। পরদিন ৭ জুলাই রাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় ১৭ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

অস্ত্র মামলায় আপিল বিভাগে সাহেদের জামিন স্থগিত

আপডেট সময় ০১:০৬:৫৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ ২০২৩

অস্ত্র মামলায় রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ করিমের জামিন স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ। মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. নুরুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন ৩ সদস্যের আপিল বিভাগ হাইকোর্টের দেওয়া জামিনের বিরুদ্ধে এ আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পী এবং সাহেদের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এস এম শাহজাহান। সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে ৩২টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে ২০২০ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর অস্ত্র আইনের মামলায় তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মামলায় সাহেদকে ১৮৭৮ সালের অস্ত্র আইনের ১৯(ক) ধারায় যাবজ্জীবন ও (চ) ধারায় সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

দুটি সাজা একত্রে চলবে বলেও রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া ওই অস্ত্র বাজেয়াপ্ত ও যে গাড়ি থেকে অস্ত্রটি উদ্ধার করা হয়েছে, তার মালিকানা যাচাই করে পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। বিচারিক আদালতের রায়ের পরে হাইকোর্টে আপিল করে জামিন চান সাহেদ। সেই আবেদনের শুনানিও নিয়ে গত বছরের ৭ জুন তাকে জামিন দেন হাইকোর্ট।

পরে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে ১২ জুন তা স্থগিত করে চেম্বার আদালত। এরপর রাষ্ট্রপক্ষ লিভ টু আপিল করেন। সেই আপিলের শুনানি হয়। মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের ১৫ জুলাই সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে সাহেদকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। এরপর তাকে নিয়ে উত্তরায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্র উদ্ধার করে সংস্থাটি।

পরে উত্তরা পশ্চিম থানায় র‌্যাব অস্ত্র আইনে একটি মামলা করে। একই বছরের ৬ জুলাই রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর শাখায় অভিযান চালায় র‌্যাব। অভিযানে করোনা ভাইরাস পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট, করোনা চিকিৎসার নামে রোগীদের কাছ থেকে অর্থ আদায়সহ নানা অনিয়ম ধরা পড়ে। পরদিন ৭ জুলাই রাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় ১৭ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়।