০১:১৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

আইসিটি বিভাগে চাকরি পেলেন চবির দুই হাত হারানো বাহার উদ্দিন

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১০:০৭:৪০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩
  • / ৪৯ বার পড়া হয়েছে

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের এনহ্যান্সিং ডিজিটাল গভর্নমেন্ট অ্যান্ড ইকোনমি (ইডিজিই) প্রকল্পের ‘প্রশিক্ষণ সমন্বয়ক’ পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে চবির সদ্য সাবেক শিক্ষার্থী দুই হাত হারানো বাহার উদ্দিন রায়হানকে। সোমবার (১৫ মে) রাজধানীর আইসিটি টাওয়ারে আনুষ্ঠানিকভাবে তার নিয়োগপত্র তুলে দেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

চাকরি পেয়ে বাহার উদ্দিন রায়হান বলেন, যেখানে বেসরকারি সেক্টরগুলোতে চাকরি পাচ্ছিলাম না, সেখানে সরকারি চাকরি ছিল আমার জন্য অবিশ্বাস্য। তারা আমার স্পৃহাকে মূল্যায়ন করে সুযোগ দিয়েছেন এই জন্য আমি কৃতজ্ঞ। নিজের সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো এই বিভাগে ভালো করার। তিনি বলেন, আমার মা অনেক খুশি হয়েছেন। তিনি সারাগ্রামে মিষ্টি বিতরণ করছেন।

বাহার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরে জিপিএ ৪-এর মধ্যে পেয়েছেন ৩ দশমিক ১৩। তারপরও চাকরি পাচ্ছিলেন না তিনি। ছোটবেলা থেকে মায়ের সাহায্যে এতটা পথ অতিক্রম করেছে রায়হান। এবার মাকে সাহায্য করতে একটা চাকরির প্রয়োজন ছিল তার। তাই, রায়হানকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই লেখালেখি করেন। তার বন্ধুরা তুলে ধরেন সংগ্রামের গল্প। যা নজর কাড়ে সরকারের আইসিটি বিভাগের।

রায়হানের বাড়ি কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার লক্ষ্যারচর ইউনিয়নে। ২০০৪ সালের ৩০ অক্টোবর এক দুর্ঘটনায় এক হাত ও আরেক হাতের কনুই পর্যন্ত হারান। পরে মুখ দিয়ে লেখে ২০১৪ সালে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে জিপিএ ৩ দশমিক ৪১ পেয়ে এসএসসি পাস করেন রায়হান। তারপর চকরিয়া কলেজে থেকে এইচএসসি পাস করে প্রতিবন্ধী কোটায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে ভর্তির সুযোগ পান তিনি।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

আইসিটি বিভাগে চাকরি পেলেন চবির দুই হাত হারানো বাহার উদ্দিন

আপডেট সময় ১০:০৭:৪০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ মে ২০২৩

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের এনহ্যান্সিং ডিজিটাল গভর্নমেন্ট অ্যান্ড ইকোনমি (ইডিজিই) প্রকল্পের ‘প্রশিক্ষণ সমন্বয়ক’ পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে চবির সদ্য সাবেক শিক্ষার্থী দুই হাত হারানো বাহার উদ্দিন রায়হানকে। সোমবার (১৫ মে) রাজধানীর আইসিটি টাওয়ারে আনুষ্ঠানিকভাবে তার নিয়োগপত্র তুলে দেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

চাকরি পেয়ে বাহার উদ্দিন রায়হান বলেন, যেখানে বেসরকারি সেক্টরগুলোতে চাকরি পাচ্ছিলাম না, সেখানে সরকারি চাকরি ছিল আমার জন্য অবিশ্বাস্য। তারা আমার স্পৃহাকে মূল্যায়ন করে সুযোগ দিয়েছেন এই জন্য আমি কৃতজ্ঞ। নিজের সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো এই বিভাগে ভালো করার। তিনি বলেন, আমার মা অনেক খুশি হয়েছেন। তিনি সারাগ্রামে মিষ্টি বিতরণ করছেন।

বাহার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরে জিপিএ ৪-এর মধ্যে পেয়েছেন ৩ দশমিক ১৩। তারপরও চাকরি পাচ্ছিলেন না তিনি। ছোটবেলা থেকে মায়ের সাহায্যে এতটা পথ অতিক্রম করেছে রায়হান। এবার মাকে সাহায্য করতে একটা চাকরির প্রয়োজন ছিল তার। তাই, রায়হানকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই লেখালেখি করেন। তার বন্ধুরা তুলে ধরেন সংগ্রামের গল্প। যা নজর কাড়ে সরকারের আইসিটি বিভাগের।

রায়হানের বাড়ি কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার লক্ষ্যারচর ইউনিয়নে। ২০০৪ সালের ৩০ অক্টোবর এক দুর্ঘটনায় এক হাত ও আরেক হাতের কনুই পর্যন্ত হারান। পরে মুখ দিয়ে লেখে ২০১৪ সালে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে জিপিএ ৩ দশমিক ৪১ পেয়ে এসএসসি পাস করেন রায়হান। তারপর চকরিয়া কলেজে থেকে এইচএসসি পাস করে প্রতিবন্ধী কোটায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে ভর্তির সুযোগ পান তিনি।