১০:২২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪

এনবিআর চেয়ারম্যানকে শেষ সুযোগ দিলেন হাইকোর্ট

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১০:৫৮:৪৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩
  • / ৬৭ বার পড়া হয়েছে

ই-অরেঞ্জের লেনদেনে রাজস্ব দিয়েছে কিনা সে বিষয়ে এনবিআরের প্রতিবেদন দাখিল না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। রোববার (৫ মার্চ) শেষ বারের মতো সময় দিয়েছেন আদালত।

এ সময় হাইকোর্ট এনবিআর চেয়ারম্যানের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। আদালত বলেন, আমরা শেষ সুযোগ দিচ্ছি। এবার প্রতিবেদন না পেলে ডাকা হবে। আদালত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর উদ্দেশ্যে বলেন, এনবিআর চেয়ারম্যান কেন আদালতের আদেশ মানছেন না? যে তথ্য চাওয়া হয়েছে তা এনবিআরের চেয়ারম্যানকে দাখিল করতে বলবেন।

এরপর বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ আগামী ২৭ মার্চ পরবর্তী শুনানি ও আদেশের তারিখ রাখেন। আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী আবদুল কাইয়ুম, বিএফআইইউ’র পক্ষে ছিলেন শামীম খালেদ আহমেদ, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক এবং দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এ কে এম ফজলুল হক।

উল্লেখ্য, গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের ঘটনায় অভিযুক্ত ই–অরেঞ্জের সঙ্গে সম্পৃক্ত সোহেল রানাকে ২০২১ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সীমান্ত এলাকা থেকে আটক করা হয়। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) সদস্যরা অনুপ্রবেশের অভিযোগে পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার চ্যাংড়াবান্ধা সীমান্ত থেকে তাকে আটক করে। পরে ৫ সেপ্টেম্বর তাকে সাময়িক বরখাস্তের কথা জানায় ঢাকা মহানগর পুলিশ।

গ্রাহকদের পক্ষে মো. আফজাল হোসেন, মো. আরাফাত আলী, মো. তরিকুল আলম, সাকিবুল ইসলাম, রানা খান ও মো. হাবিবুল্লাহ জাহিদ নামে ছয়জন গ্রাহক গত বছরের মার্চে হাইকোর্টে রিট করেন। রিট আবেদনে বলা হয়, ই-অরেঞ্জ থেকে ৭৭ কোটি টাকার পণ্য কিনে প্রতারণার শিকার ৫৪৭ জন।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

এনবিআর চেয়ারম্যানকে শেষ সুযোগ দিলেন হাইকোর্ট

আপডেট সময় ১০:৫৮:৪৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩

ই-অরেঞ্জের লেনদেনে রাজস্ব দিয়েছে কিনা সে বিষয়ে এনবিআরের প্রতিবেদন দাখিল না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। রোববার (৫ মার্চ) শেষ বারের মতো সময় দিয়েছেন আদালত।

এ সময় হাইকোর্ট এনবিআর চেয়ারম্যানের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। আদালত বলেন, আমরা শেষ সুযোগ দিচ্ছি। এবার প্রতিবেদন না পেলে ডাকা হবে। আদালত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর উদ্দেশ্যে বলেন, এনবিআর চেয়ারম্যান কেন আদালতের আদেশ মানছেন না? যে তথ্য চাওয়া হয়েছে তা এনবিআরের চেয়ারম্যানকে দাখিল করতে বলবেন।

এরপর বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ আগামী ২৭ মার্চ পরবর্তী শুনানি ও আদেশের তারিখ রাখেন। আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী আবদুল কাইয়ুম, বিএফআইইউ’র পক্ষে ছিলেন শামীম খালেদ আহমেদ, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক এবং দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এ কে এম ফজলুল হক।

উল্লেখ্য, গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের ঘটনায় অভিযুক্ত ই–অরেঞ্জের সঙ্গে সম্পৃক্ত সোহেল রানাকে ২০২১ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সীমান্ত এলাকা থেকে আটক করা হয়। ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) সদস্যরা অনুপ্রবেশের অভিযোগে পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার চ্যাংড়াবান্ধা সীমান্ত থেকে তাকে আটক করে। পরে ৫ সেপ্টেম্বর তাকে সাময়িক বরখাস্তের কথা জানায় ঢাকা মহানগর পুলিশ।

গ্রাহকদের পক্ষে মো. আফজাল হোসেন, মো. আরাফাত আলী, মো. তরিকুল আলম, সাকিবুল ইসলাম, রানা খান ও মো. হাবিবুল্লাহ জাহিদ নামে ছয়জন গ্রাহক গত বছরের মার্চে হাইকোর্টে রিট করেন। রিট আবেদনে বলা হয়, ই-অরেঞ্জ থেকে ৭৭ কোটি টাকার পণ্য কিনে প্রতারণার শিকার ৫৪৭ জন।