১১:১২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪

কমলাপুরে ঘরে ফেরা যাত্রীদের ভিড়

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৯:৩৬:৪৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৩৮ বার পড়া হয়েছে

ঈদে ট্রেনযাত্রা শুরু হয়েছে গত সোমবার (১৭ এপ্রিল) থেকে। ঈদযাত্রার প্রথম তিন দিন (সোম, মঙ্গল ও বুধবার) যাত্রীর তেমন ভিড় ছিল না। তবে বৃহস্পতিবার (২০ এপ্রিল) ভোর থেকেই কমলাপুরে দেখা গেছে হাজারো ঘরে ফেরা মানুষের ভিড়।

কমলাপুর স্টেশন ঘুরে দেখা গেছে ভোর থেকেই যাত্রীদের প্রচণ্ড চাপ। তবে টিকিট না দেখিয়ে কেউ স্টেশনে প্রবেশ করতে পারছেন না। এ কাজে সহায়তা করছে র‌্যাব ও পুলিশ, সঙ্গে রয়েছে অন্যান্য বাহিনী। যারা অনলাইনে টিকিট সংগ্রহ করতে পারেননি তারা ট্রেন ছাড়ার আগ মুহূর্তে কাউন্টার থেকে স্ট্যান্ডিং টিকিট সংগ্রহ করছেন। তবে স্ট্যান্ডিং টিকিট শতকরা ২৫ ভাগ নির্দিষ্ট হওয়ায় অনেকেই টিকিট সংগ্রহ করতে পারছেন না।

তারিক নামে রাজশাহীগামী এক যাত্রী বলেন, অনলাইন মাধ্যমে টিকিটের ব্যবস্থা সরকারের একটি ভালো উদ্যোগ ছিল। তবে একসঙ্গে অনেকে প্রবেশ করায় টিকিট কাটায় ঝামেলা হয়েছে। আনিসুর রহমান নামে আরেক যাত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত ভোগান্তি ছাড়াই নিরাপদে সবাই ঘরে ফিরছেন। এভাবে ট্রেন যাত্রা হলে ট্রেনের প্রতি মানুষের আস্থা বাড়বে। সব মিলিয়ে এবারের ঈদযাত্রা ভালো হয়েছে। কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার মাসুদ সারওয়ার সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আজ দেশের বিভিন্ন গন্তব্যের উদ্দেশ্যে মোট ৫৫ জোরা ট্রেন চলাচল করছে।

ভোর থেকেই যাত্রীর চাপ অনেক, আগামীকাল আরও চাপ বাড়তে পারে। যাত্রীর চাপ থাকলেও শৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে সবাই স্টেশনে প্রবেশ করেছেন। এখন পর্যন্ত আমাদের ট্রেন সময়মতো ছেড়েছে। আমাদের নির্দিষ্ট আসনের ২৫ শতাংশ স্ট্যান্ডিং টিকিট বিক্রি হচ্ছে। তবে এ টিকিটের চেয়ে যাত্রী বেশি হওয়ায় অনেকেই টিকিট পাচ্ছেন না। এবার ঈদযাত্রায় উত্তরাঞ্চল থেকে ছেড়ে আসা সাতটি ট্রেন রাজধানীর বিমানবন্দর রেলস্টেশনে থামছে না। সেগুলো হলো-একতা এক্সপ্রেস, দ্রুতযান, পঞ্চগড়, নীলসাগর, কুড়িগ্রাম, লালমনি ও রংপুর এক্সপ্রেস।

ট্রেনগুলো সরাসরি কমলাপুর স্টেশনে চলে আসছে। বাংলাদেশ রেলওয়ে শিডিউল বিপর্যয় ঠেকাতে এ উদ্যোগ নিয়েছে। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আন্তঃদেশীয় মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেন ১৮ থেকে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত এবং মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেন ২০ থেকে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে আন্তঃদেশীয় বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেন যথারীতি চলাচল করছে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

কমলাপুরে ঘরে ফেরা যাত্রীদের ভিড়

আপডেট সময় ০৯:৩৬:৪৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৩

ঈদে ট্রেনযাত্রা শুরু হয়েছে গত সোমবার (১৭ এপ্রিল) থেকে। ঈদযাত্রার প্রথম তিন দিন (সোম, মঙ্গল ও বুধবার) যাত্রীর তেমন ভিড় ছিল না। তবে বৃহস্পতিবার (২০ এপ্রিল) ভোর থেকেই কমলাপুরে দেখা গেছে হাজারো ঘরে ফেরা মানুষের ভিড়।

কমলাপুর স্টেশন ঘুরে দেখা গেছে ভোর থেকেই যাত্রীদের প্রচণ্ড চাপ। তবে টিকিট না দেখিয়ে কেউ স্টেশনে প্রবেশ করতে পারছেন না। এ কাজে সহায়তা করছে র‌্যাব ও পুলিশ, সঙ্গে রয়েছে অন্যান্য বাহিনী। যারা অনলাইনে টিকিট সংগ্রহ করতে পারেননি তারা ট্রেন ছাড়ার আগ মুহূর্তে কাউন্টার থেকে স্ট্যান্ডিং টিকিট সংগ্রহ করছেন। তবে স্ট্যান্ডিং টিকিট শতকরা ২৫ ভাগ নির্দিষ্ট হওয়ায় অনেকেই টিকিট সংগ্রহ করতে পারছেন না।

তারিক নামে রাজশাহীগামী এক যাত্রী বলেন, অনলাইন মাধ্যমে টিকিটের ব্যবস্থা সরকারের একটি ভালো উদ্যোগ ছিল। তবে একসঙ্গে অনেকে প্রবেশ করায় টিকিট কাটায় ঝামেলা হয়েছে। আনিসুর রহমান নামে আরেক যাত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত ভোগান্তি ছাড়াই নিরাপদে সবাই ঘরে ফিরছেন। এভাবে ট্রেন যাত্রা হলে ট্রেনের প্রতি মানুষের আস্থা বাড়বে। সব মিলিয়ে এবারের ঈদযাত্রা ভালো হয়েছে। কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার মাসুদ সারওয়ার সংবাদমাধ্যমকে বলেন, আজ দেশের বিভিন্ন গন্তব্যের উদ্দেশ্যে মোট ৫৫ জোরা ট্রেন চলাচল করছে।

ভোর থেকেই যাত্রীর চাপ অনেক, আগামীকাল আরও চাপ বাড়তে পারে। যাত্রীর চাপ থাকলেও শৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে সবাই স্টেশনে প্রবেশ করেছেন। এখন পর্যন্ত আমাদের ট্রেন সময়মতো ছেড়েছে। আমাদের নির্দিষ্ট আসনের ২৫ শতাংশ স্ট্যান্ডিং টিকিট বিক্রি হচ্ছে। তবে এ টিকিটের চেয়ে যাত্রী বেশি হওয়ায় অনেকেই টিকিট পাচ্ছেন না। এবার ঈদযাত্রায় উত্তরাঞ্চল থেকে ছেড়ে আসা সাতটি ট্রেন রাজধানীর বিমানবন্দর রেলস্টেশনে থামছে না। সেগুলো হলো-একতা এক্সপ্রেস, দ্রুতযান, পঞ্চগড়, নীলসাগর, কুড়িগ্রাম, লালমনি ও রংপুর এক্সপ্রেস।

ট্রেনগুলো সরাসরি কমলাপুর স্টেশনে চলে আসছে। বাংলাদেশ রেলওয়ে শিডিউল বিপর্যয় ঠেকাতে এ উদ্যোগ নিয়েছে। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আন্তঃদেশীয় মিতালী এক্সপ্রেস ট্রেন ১৮ থেকে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত এবং মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেন ২০ থেকে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে আন্তঃদেশীয় বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেন যথারীতি চলাচল করছে।