১২:২০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

‘কূটনীতিকদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো সমীচীন নয়’

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৪:৫১:৪২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ মার্চ ২০২৩
  • / ৭৭ বার পড়া হয়েছে

আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কূটনীতিকদের নাক গলানো সমীচীন নয় বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। শুক্রবার (৩১ মার্চ) চট্টগ্রামের দেওয়ানজী পুকুর পাড়ের বাসায় সমসাময়িক বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অনেকের পছন্দ হয় না। দেশের সমৃদ্ধি যারা পছন্দ করে না, তারাই অপপ্রচার ছড়ায়। তিনি বলেন, দেশ অব্যাহতভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, দারিদ্র্যতা কমছে, দেশের সমৃদ্ধির সঙ্গে সব মানুষের সমৃদ্ধি এবং স্বচ্ছলতা এসেছে। অথচ, কিছু কিছু পত্রিকায় উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নেগেটিভ রিপোর্ট করা হয়।

হাছান মাহমুদ বলেন, কূটনীতিকদের আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো সমীচীন নয়। প্রয়োজনে কূটনীতিকদের আচরণ সম্পর্কিত ভিয়েনা কনভেনশন তাদের স্মরণ করিয়ে দেওয়া হবে। আমাদের খাটো করার সময় চলে গেছে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বমন্দার মধ্যেও দেশ যেভাবে এগিয়ে চলেছে, পৃথিবীর বিভিন্ন পত্রপত্রিকা তার প্রশংসা করছে।

সম্প্রতি ব্লুমবার্গের একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, আগামী নির্বাচনেও শেখ হাসিনা জয়লাভের সম্ভাবনা রয়েছে। শেখ হাসিনা চতুর্থ মেয়াদের মতো নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে গণমাধ্যম ও সাংবাদিকরা ভূমিকা রাখে। গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আওয়ামী লীগ সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছে।

বিএনপির সমালোচনা করে হাছান মাহমুদ বলেন, আশা করেছিলাম তারা দুঃস্থ মানুষের সঙ্গে ইফতার করবে। সেটি না করে ফাইভ স্টার হোটেলে বসে কূটনীতিকদের সঙ্গে ইফতার করেছে। সেখানে গিয়ে আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের জন্য অনুনয় বিনয় করেছে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

‘কূটনীতিকদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো সমীচীন নয়’

আপডেট সময় ০৪:৫১:৪২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ মার্চ ২০২৩

আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কূটনীতিকদের নাক গলানো সমীচীন নয় বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। শুক্রবার (৩১ মার্চ) চট্টগ্রামের দেওয়ানজী পুকুর পাড়ের বাসায় সমসাময়িক বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অনেকের পছন্দ হয় না। দেশের সমৃদ্ধি যারা পছন্দ করে না, তারাই অপপ্রচার ছড়ায়। তিনি বলেন, দেশ অব্যাহতভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, দারিদ্র্যতা কমছে, দেশের সমৃদ্ধির সঙ্গে সব মানুষের সমৃদ্ধি এবং স্বচ্ছলতা এসেছে। অথচ, কিছু কিছু পত্রিকায় উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নেগেটিভ রিপোর্ট করা হয়।

হাছান মাহমুদ বলেন, কূটনীতিকদের আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো সমীচীন নয়। প্রয়োজনে কূটনীতিকদের আচরণ সম্পর্কিত ভিয়েনা কনভেনশন তাদের স্মরণ করিয়ে দেওয়া হবে। আমাদের খাটো করার সময় চলে গেছে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বমন্দার মধ্যেও দেশ যেভাবে এগিয়ে চলেছে, পৃথিবীর বিভিন্ন পত্রপত্রিকা তার প্রশংসা করছে।

সম্প্রতি ব্লুমবার্গের একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, আগামী নির্বাচনেও শেখ হাসিনা জয়লাভের সম্ভাবনা রয়েছে। শেখ হাসিনা চতুর্থ মেয়াদের মতো নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে গণমাধ্যম ও সাংবাদিকরা ভূমিকা রাখে। গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আওয়ামী লীগ সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছে।

বিএনপির সমালোচনা করে হাছান মাহমুদ বলেন, আশা করেছিলাম তারা দুঃস্থ মানুষের সঙ্গে ইফতার করবে। সেটি না করে ফাইভ স্টার হোটেলে বসে কূটনীতিকদের সঙ্গে ইফতার করেছে। সেখানে গিয়ে আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের জন্য অনুনয় বিনয় করেছে।