০৮:২৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪

গুলিস্তানের সেই ভবনে সিটিটিসির বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৭:২৮:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মার্চ ২০২৩
  • / ৭১ বার পড়া হয়েছে

রাজধানীর গুলিস্তানের পাশে সিদ্দিকবাজারে বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত ভবন কুইন টাওয়ারে কাজ করছে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট।

শনিবার (১১ মার্চ) দুপুরে সিটিটিসির উপ-পুলিশ কমিশনার মিশুক চাকমার নেতৃত্বে কাজ করছেন তারা। গত মঙ্গলবার (৭ মার্চ) বিকেল পৌনে ৫টার দিকে গুলিস্তানে বিআরটিসির বাস কাউন্টারের কাছে সিদ্দিকবাজারে সাত তলা একটি ভবনে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে পাশের আরেকটি পাঁচ তলা ভবনও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এরমধ্যে সাত তলা ভবনের বেজমেন্ট, প্রথম ও দোতলা বিধ্বস্ত হয়। আর পাঁচ তলা ভবনের নিচতলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এই ভবনের দ্বিতীয় থেকে পঞ্চম তলা পর্যন্ত ব্র্যাক ব্যাংকের কার্যালয়। পরে সেখানে উদ্ধারকাজ চালায় ফায়ার সার্ভিসের ১১টি ইউনিট।বিস্ফোরণের পর ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ায় ঘটনার দিন রাত পৌনে ১১টার দিকে উদ্ধারকাজ স্থগিত করা হয়। পরদিন থেকে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত আছে। এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত শতাধিক হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

বিস্ফোরণের ফলে ভবনটিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে ঘোষণা করেছে রাজউক। ভবনটি ধসে পড়তে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে। এজন্য এই ভবনে উদ্ধার তৎপরতায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। তবে ভবনটি ভেঙে ফেলা হবে নাকি সংস্কার করা হবে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে রাজউক দেড় মাস সময় নিয়েছে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

গুলিস্তানের সেই ভবনে সিটিটিসির বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট

আপডেট সময় ০৭:২৮:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মার্চ ২০২৩

রাজধানীর গুলিস্তানের পাশে সিদ্দিকবাজারে বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত ভবন কুইন টাওয়ারে কাজ করছে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট।

শনিবার (১১ মার্চ) দুপুরে সিটিটিসির উপ-পুলিশ কমিশনার মিশুক চাকমার নেতৃত্বে কাজ করছেন তারা। গত মঙ্গলবার (৭ মার্চ) বিকেল পৌনে ৫টার দিকে গুলিস্তানে বিআরটিসির বাস কাউন্টারের কাছে সিদ্দিকবাজারে সাত তলা একটি ভবনে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে পাশের আরেকটি পাঁচ তলা ভবনও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এরমধ্যে সাত তলা ভবনের বেজমেন্ট, প্রথম ও দোতলা বিধ্বস্ত হয়। আর পাঁচ তলা ভবনের নিচতলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এই ভবনের দ্বিতীয় থেকে পঞ্চম তলা পর্যন্ত ব্র্যাক ব্যাংকের কার্যালয়। পরে সেখানে উদ্ধারকাজ চালায় ফায়ার সার্ভিসের ১১টি ইউনিট।বিস্ফোরণের পর ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ায় ঘটনার দিন রাত পৌনে ১১টার দিকে উদ্ধারকাজ স্থগিত করা হয়। পরদিন থেকে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত আছে। এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত শতাধিক হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

বিস্ফোরণের ফলে ভবনটিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে ঘোষণা করেছে রাজউক। ভবনটি ধসে পড়তে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে। এজন্য এই ভবনে উদ্ধার তৎপরতায় সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। তবে ভবনটি ভেঙে ফেলা হবে নাকি সংস্কার করা হবে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে রাজউক দেড় মাস সময় নিয়েছে।