০৫:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪

দেশে ফেরার আকুতি ৭০০ সুদান প্রবাসীর

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১০:০১:৪২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৫৩ বার পড়া হয়েছে

সংঘাতময় পরিস্থিতিতে সুদান থেকে দেশে ফিরতে চেয়েছেন প্রায় ৭০০ বাংলাদেশি। এদের অনেকেই পানি ও খাদ্য সংকটে রয়েছেন। বিষয়টি আমলে নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় দ্রুত তাদের দেশে আনার ব্যবস্থা নিয়েছে।

সুদানের সেনাবাহিনী ও আধা-সামরিক বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষ চলছে। বর্তমানে সংঘর্ষ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের অফিস এবং বাসভবনও বাদ যায়নি। আটকে পড়া বাংলাদেশি কয়েকজন ভিডিও বার্তা দিয়েছে। তারা বলেন, আমরা সুদানে অনেক বিপদগ্রস্ত হয়ে আছি। আমাদের রক্ষা করেন, আমরা অনেক বিপদে আছি। আমরা একরুমে ১০-১২ জন না খেয়ে দিন পার করতেছি।

আটকেপড়া বাংলাদেশিদের আরেক ভিডিও বার্তায় তাদের বাসার ভেতরের পরিস্থিতি দেখান। সেই ভিডিওতে দেখা যায়, তাদের বাসায় সব এলোমেলো অবস্থায় পড়ে আছে। তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র লুটপাট করে নিয়ে গেছে। ওই ভিডিওতে একজন বলেন, আমার মোবাইলসহ মূল্যবান সব জিনিসপত্র নিয়ে গেছে। আমরা সবাই আতঙ্কে আছি।এদিকে, সুদানের সার্বিক পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় বাংলাদেশ সরকার বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া এরই মধ্যে শুরু করেছে।

আটকে পড়া বাংলাদেশিদেরকে ফেরত আনতে প্রথমে খার্তুম থেকে পোর্ট সুদান এবং পোর্ট সুদান থেকে পোর্ট জেদ্দায় ফিরিয়ে আনার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। জেদ্দা থেকে তাদের বাংলাদেশ বিমানের কয়েকটি ফ্লাইটে ঢাকায় আনা হবে। পোর্ট সুদানে নেওয়ার জন্য নয়টি বাস ঠিক করা হয়েছে। খার্তুম এবং এর আশপাশের শহর থেকে বাংলাদেশিদেরকে এসব বাসে করে নিয়ে যাওয়া হবে। পরে তাদের পোর্ট জেদ্দায় পরিবহনের জন্য রাজকীয় সৌদি সরকার বিনামূল্যে সৌদি নৌবাহিনীর জাহাজ দেওয়ার জন্য প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

২ মে তারিখের মধ্যে সকল বাংলাদেশিকে পোর্ট সুদানে নিয়ে আসা সম্ভব হবে বলে আশা করেছে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। রাষ্ট্রদূত বিষয়টি এগিয়ে নিতে আলাপ আলোচনার জন্য বর্তমানে পোর্ট সুদানে অবস্থান করছেন। ৩ বা ৪ মে তারিখের মধ্যে বাংলাদেশিরা জেদ্দা পৌঁছে যাবেন বলে আশ করেন তিনি। জেদ্দার দুইটি বাংলাদেশ স্কুলে সুদান প্রবাসীদের রাখতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। একই ভাবে পোর্ট সুদানেও বাংলাদেশ অ্যাম্বাসির পক্ষ থেকে প্রবাসীদের জন্য খাদ্য, পানীয়, ওষুধ এবং সাময়িক বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

জেদ্দা পৌঁছানোর দিনই বাংলাদেশ বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে বাংলাদেশিদের ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হবে। প্রধানমন্ত্রী জাপান সফরের প্রাক্কালে বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্বেরসঙ্গে বিবেচনার নির্দেশ দিয়েছেন। ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিবের নির্দেশনায় সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত, বাংলাদেশ কনসুলেট জেনারেল জেদ্দার কনসাল জেনারেল এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা এ বিষয়ে নিবিড়ভাবে কাজ করছেন।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

দেশে ফেরার আকুতি ৭০০ সুদান প্রবাসীর

আপডেট সময় ১০:০১:৪২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২৩

সংঘাতময় পরিস্থিতিতে সুদান থেকে দেশে ফিরতে চেয়েছেন প্রায় ৭০০ বাংলাদেশি। এদের অনেকেই পানি ও খাদ্য সংকটে রয়েছেন। বিষয়টি আমলে নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় দ্রুত তাদের দেশে আনার ব্যবস্থা নিয়েছে।

সুদানের সেনাবাহিনী ও আধা-সামরিক বাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষ চলছে। বর্তমানে সংঘর্ষ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের অফিস এবং বাসভবনও বাদ যায়নি। আটকে পড়া বাংলাদেশি কয়েকজন ভিডিও বার্তা দিয়েছে। তারা বলেন, আমরা সুদানে অনেক বিপদগ্রস্ত হয়ে আছি। আমাদের রক্ষা করেন, আমরা অনেক বিপদে আছি। আমরা একরুমে ১০-১২ জন না খেয়ে দিন পার করতেছি।

আটকেপড়া বাংলাদেশিদের আরেক ভিডিও বার্তায় তাদের বাসার ভেতরের পরিস্থিতি দেখান। সেই ভিডিওতে দেখা যায়, তাদের বাসায় সব এলোমেলো অবস্থায় পড়ে আছে। তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র লুটপাট করে নিয়ে গেছে। ওই ভিডিওতে একজন বলেন, আমার মোবাইলসহ মূল্যবান সব জিনিসপত্র নিয়ে গেছে। আমরা সবাই আতঙ্কে আছি।এদিকে, সুদানের সার্বিক পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় বাংলাদেশ সরকার বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া এরই মধ্যে শুরু করেছে।

আটকে পড়া বাংলাদেশিদেরকে ফেরত আনতে প্রথমে খার্তুম থেকে পোর্ট সুদান এবং পোর্ট সুদান থেকে পোর্ট জেদ্দায় ফিরিয়ে আনার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। জেদ্দা থেকে তাদের বাংলাদেশ বিমানের কয়েকটি ফ্লাইটে ঢাকায় আনা হবে। পোর্ট সুদানে নেওয়ার জন্য নয়টি বাস ঠিক করা হয়েছে। খার্তুম এবং এর আশপাশের শহর থেকে বাংলাদেশিদেরকে এসব বাসে করে নিয়ে যাওয়া হবে। পরে তাদের পোর্ট জেদ্দায় পরিবহনের জন্য রাজকীয় সৌদি সরকার বিনামূল্যে সৌদি নৌবাহিনীর জাহাজ দেওয়ার জন্য প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

২ মে তারিখের মধ্যে সকল বাংলাদেশিকে পোর্ট সুদানে নিয়ে আসা সম্ভব হবে বলে আশা করেছে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। রাষ্ট্রদূত বিষয়টি এগিয়ে নিতে আলাপ আলোচনার জন্য বর্তমানে পোর্ট সুদানে অবস্থান করছেন। ৩ বা ৪ মে তারিখের মধ্যে বাংলাদেশিরা জেদ্দা পৌঁছে যাবেন বলে আশ করেন তিনি। জেদ্দার দুইটি বাংলাদেশ স্কুলে সুদান প্রবাসীদের রাখতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। একই ভাবে পোর্ট সুদানেও বাংলাদেশ অ্যাম্বাসির পক্ষ থেকে প্রবাসীদের জন্য খাদ্য, পানীয়, ওষুধ এবং সাময়িক বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

জেদ্দা পৌঁছানোর দিনই বাংলাদেশ বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে বাংলাদেশিদের ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হবে। প্রধানমন্ত্রী জাপান সফরের প্রাক্কালে বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্বেরসঙ্গে বিবেচনার নির্দেশ দিয়েছেন। ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিবের নির্দেশনায় সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত, বাংলাদেশ কনসুলেট জেনারেল জেদ্দার কনসাল জেনারেল এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা এ বিষয়ে নিবিড়ভাবে কাজ করছেন।