০৩:৫৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

নকল করতে গিয়ে ধরা পড়েছিলেন শ্রদ্ধা, অতঃপর…

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১০:১৫:৩৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩
  • / ৫৮ বার পড়া হয়েছে

বলিউড অভিনেত্রী শ্রদ্ধা কাপুর একবার পরীক্ষায় নকল করতে গিয়ে ধরা পড়েছিলেন। নিজেই এ তথ্য ফাঁস করে তিনি স্বীকার করেন, ‘আমি একেবারে যা-তা মানের মিথ্যাবাদী।’

শ্রদ্ধা কাপুর এখন কাজ করছেন ‘তু ঝুটি ম্যায় মাক্কার’ ছবিতে। রোমান্টিক-কমেডি ঘরানার এই সিনেমায় তার বিপরীতে আছেন রণবীর কাপুর। সম্প্রতি এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ছাত্রজীবনের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। সেই অভিজ্ঞতাকে তিনি রীতিমতো বোকামির সঙ্গে তুলনা করেছেন।

শ্রদ্ধা বলেন, ‘জীবনের কোনো না কোনো পর্যায়ে আমাদের সবাইকেই নকলের আশ্রয় নিতে হয়।’ সেবার শ্রদ্ধাও পরীক্ষায় নকলের সমস্ত প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিলেন। ‘নিজের ওপর তখন বেশ রাগ হচ্ছিল। পোশাকের (পিনাফোর) নিচে উত্তর লিখে নিয়ে গিয়েছিলাম। মনে হচ্ছিল, বাহ! কী চমৎকার বুদ্ধি।

মানে কেউ আমাকে ধরতেই পারবে না! মনে হচ্ছিল ভালো নম্বর পাওয়া এবার আর কে ঠেকায়,’ যোগ করেন শ্রদ্ধা। তবে শ্রদ্ধার শিক্ষক ঠিকই তাকে ধরে ফেলেছিলেন ওই সময়। তিনি বলেন, ‘শিক্ষক সেখানেই ছিলেন।’ তিনি ধমকের সুরে বললেন, ‘শ্রদ্ধা! শেষ পর্যন্ত ধরা পড়েই গেলাম। অর্থাৎ, মিথ্যা বলার বিষয়ে আমি একেবারেই যা-তা।’

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

নকল করতে গিয়ে ধরা পড়েছিলেন শ্রদ্ধা, অতঃপর…

আপডেট সময় ১০:১৫:৩৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩

বলিউড অভিনেত্রী শ্রদ্ধা কাপুর একবার পরীক্ষায় নকল করতে গিয়ে ধরা পড়েছিলেন। নিজেই এ তথ্য ফাঁস করে তিনি স্বীকার করেন, ‘আমি একেবারে যা-তা মানের মিথ্যাবাদী।’

শ্রদ্ধা কাপুর এখন কাজ করছেন ‘তু ঝুটি ম্যায় মাক্কার’ ছবিতে। রোমান্টিক-কমেডি ঘরানার এই সিনেমায় তার বিপরীতে আছেন রণবীর কাপুর। সম্প্রতি এনডিটিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ছাত্রজীবনের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। সেই অভিজ্ঞতাকে তিনি রীতিমতো বোকামির সঙ্গে তুলনা করেছেন।

শ্রদ্ধা বলেন, ‘জীবনের কোনো না কোনো পর্যায়ে আমাদের সবাইকেই নকলের আশ্রয় নিতে হয়।’ সেবার শ্রদ্ধাও পরীক্ষায় নকলের সমস্ত প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিলেন। ‘নিজের ওপর তখন বেশ রাগ হচ্ছিল। পোশাকের (পিনাফোর) নিচে উত্তর লিখে নিয়ে গিয়েছিলাম। মনে হচ্ছিল, বাহ! কী চমৎকার বুদ্ধি।

মানে কেউ আমাকে ধরতেই পারবে না! মনে হচ্ছিল ভালো নম্বর পাওয়া এবার আর কে ঠেকায়,’ যোগ করেন শ্রদ্ধা। তবে শ্রদ্ধার শিক্ষক ঠিকই তাকে ধরে ফেলেছিলেন ওই সময়। তিনি বলেন, ‘শিক্ষক সেখানেই ছিলেন।’ তিনি ধমকের সুরে বললেন, ‘শ্রদ্ধা! শেষ পর্যন্ত ধরা পড়েই গেলাম। অর্থাৎ, মিথ্যা বলার বিষয়ে আমি একেবারেই যা-তা।’