০৫:০৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

নিপাহ ভাইরাসে শ্বশুর পর পুত্রবধূর মৃত্যু

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৯:৩৮:১৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মার্চ ২০২৩
  • / ৮১ বার পড়া হয়েছে

নওগাঁর মান্দা উপজেরায় নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ফরিদা বেগম ও তার শশুর আব্দুল হকের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আব্দুল হকের স্ত্রী রহিমা বেগমসহ দুজন রাজশাহী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বুধবার (১ মার্চ) বিকেলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান ফরিদা। এর কয়েকদিন আগেই নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজশাহী হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয় তার শ্বশুর আব্দুল হকের। মৃত ফরিদা বেগম ও তার শ্বশুর আব্দুল হক উপজেলার কশব ইউনিয়নের চকচোঁয়ার গ্রামের বাসিন্দা।

স্থানীয়রা জানান, আব্দুল হকের পরিবার বাড়ির পাশে লাগানো খেজুরের গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে পান করেন। এর দুদিন পর হকের শরীরে সর্দি-জ্বরসহ বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে গত ৮ ফেব্রুয়ারি তাকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় অবস্থার অবনতি হলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান তিনি।

এদিকে হকের পুত্রবধূ ফরিদা সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। বুধবার তার উপসর্গগুলো সন্দেহজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান চিকিৎসকরা। পরে একই বিকেলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। এ বিষয়ে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ ও জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ যৌথভাবে ঘটনা সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

মান্দা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বিজয় কুমার রায় জানান, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত হকের স্ত্রী রহিমা বেগমসহ দুই-তিনজন অসুস্থ হয়ে ভর্তি আছেন। ইতোমধ্যে ঢাকা থেকে আসা আইসিডিডিআরবি’র একটি টিম এ নিয়ে রামেক হাসপাতালে কাজ শুরু করেছে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

নিপাহ ভাইরাসে শ্বশুর পর পুত্রবধূর মৃত্যু

আপডেট সময় ০৯:৩৮:১৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২ মার্চ ২০২৩

নওগাঁর মান্দা উপজেরায় নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ফরিদা বেগম ও তার শশুর আব্দুল হকের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আব্দুল হকের স্ত্রী রহিমা বেগমসহ দুজন রাজশাহী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বুধবার (১ মার্চ) বিকেলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান ফরিদা। এর কয়েকদিন আগেই নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজশাহী হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয় তার শ্বশুর আব্দুল হকের। মৃত ফরিদা বেগম ও তার শ্বশুর আব্দুল হক উপজেলার কশব ইউনিয়নের চকচোঁয়ার গ্রামের বাসিন্দা।

স্থানীয়রা জানান, আব্দুল হকের পরিবার বাড়ির পাশে লাগানো খেজুরের গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে পান করেন। এর দুদিন পর হকের শরীরে সর্দি-জ্বরসহ বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে গত ৮ ফেব্রুয়ারি তাকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ সময় অবস্থার অবনতি হলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যান তিনি।

এদিকে হকের পুত্রবধূ ফরিদা সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। বুধবার তার উপসর্গগুলো সন্দেহজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান চিকিৎসকরা। পরে একই বিকেলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। এ বিষয়ে মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ ও জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ যৌথভাবে ঘটনা সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

মান্দা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বিজয় কুমার রায় জানান, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত হকের স্ত্রী রহিমা বেগমসহ দুই-তিনজন অসুস্থ হয়ে ভর্তি আছেন। ইতোমধ্যে ঢাকা থেকে আসা আইসিডিডিআরবি’র একটি টিম এ নিয়ে রামেক হাসপাতালে কাজ শুরু করেছে।