০৮:০৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠীর কমান্ডার সিরিয়ায় নিহত

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৮:০৭:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মার্চ ২০২৩
  • / ৭৪ বার পড়া হয়েছে

ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী ইসলামিক জিহাদের একজন কমান্ডার সিরিয়ায় নিহত হয়েছেন। রোববার ইসরাইলি গুপ্তঘাতরা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। ইসলামিক জিহাদ গোষ্ঠীর সামরিক শাখা আল-কুদস ব্রিগেড ইসরাইলকে উল্লেখ করে এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘৩১ বছর বয়সি আলী রামজি আল-আসওয়াদ রোববার সকালে দামেস্কের গ্রামাঞ্চলে জায়নবাদী শত্রুর কাপুরুষোচিত বুলেটের আঘাতে নিহত হয়েছেন।’

রোববারের কথিত হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে ইসরাইলের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো বিবৃতি পাওয়া যায়নি। ইসলামিক জিহাদ এক বিবৃতিতে বলেছে, আসওয়াদের পরিবার ১৯৪৮ সালে হাইফা শহর থেকে বাস্তুচ্যুত হয়েছিল এবং সিরিয়ার শরণার্থী শিবিরে বসতি স্থাপন করেছিলেন। যেখানেই তিনি যুবক হিসেবে সংগঠনে যোগ দিয়েছিলেন।

২০১৯ সালে ইসরাইলি যুদ্ধবিমানগুলো নির্বাসিত জীবনযাপনকারী ইসলামিক জিহাদের নেতৃত্বের সদস্য আকরাম আল-আজুরির বাড়িতে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছিল। আজুরির কোনো ক্ষতি হয়নি, তবে তার ছেলে ওই হামলায় নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে। গত মাসে দামেস্কের আবাসিক এলাকায় বিমান হামলায় অন্তত পাঁচজন নিহত হওয়ার জন্য ইসরাইলকে দায়ী করেছেন বলে সিরিয়ার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

ইসলামিক জিহাদের একজন কর্মকর্তা একটি বিবৃতিতে ইসরাইলকে সতর্ক করে বলেছেন, ‘প্রতিরোধের নেতাদের হত্যার প্রচেষ্টার (অবিলম্বে) দেরি না করে একটি নিষ্পত্তিমূলক জবাব দেওয়া হবে।’ ইসরাইল সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সিরিয়ার সরকার-নিয়ন্ত্রিত অংশের অভ্যন্তরের লক্ষ্যবস্তুতে শত শত হামলা চালিয়েছে। যার মধ্যে দামেস্ক ও আলেপ্পো বিমানবন্দরেও হামলা চালানো হয়েছে। তবে অভিযানগুলোকে খুব কমই স্বীকার করে বা আলোচনা করে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠীর কমান্ডার সিরিয়ায় নিহত

আপডেট সময় ০৮:০৭:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২০ মার্চ ২০২৩

ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী ইসলামিক জিহাদের একজন কমান্ডার সিরিয়ায় নিহত হয়েছেন। রোববার ইসরাইলি গুপ্তঘাতরা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। ইসলামিক জিহাদ গোষ্ঠীর সামরিক শাখা আল-কুদস ব্রিগেড ইসরাইলকে উল্লেখ করে এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘৩১ বছর বয়সি আলী রামজি আল-আসওয়াদ রোববার সকালে দামেস্কের গ্রামাঞ্চলে জায়নবাদী শত্রুর কাপুরুষোচিত বুলেটের আঘাতে নিহত হয়েছেন।’

রোববারের কথিত হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে ইসরাইলের পক্ষ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো বিবৃতি পাওয়া যায়নি। ইসলামিক জিহাদ এক বিবৃতিতে বলেছে, আসওয়াদের পরিবার ১৯৪৮ সালে হাইফা শহর থেকে বাস্তুচ্যুত হয়েছিল এবং সিরিয়ার শরণার্থী শিবিরে বসতি স্থাপন করেছিলেন। যেখানেই তিনি যুবক হিসেবে সংগঠনে যোগ দিয়েছিলেন।

২০১৯ সালে ইসরাইলি যুদ্ধবিমানগুলো নির্বাসিত জীবনযাপনকারী ইসলামিক জিহাদের নেতৃত্বের সদস্য আকরাম আল-আজুরির বাড়িতে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছিল। আজুরির কোনো ক্ষতি হয়নি, তবে তার ছেলে ওই হামলায় নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে। গত মাসে দামেস্কের আবাসিক এলাকায় বিমান হামলায় অন্তত পাঁচজন নিহত হওয়ার জন্য ইসরাইলকে দায়ী করেছেন বলে সিরিয়ার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

ইসলামিক জিহাদের একজন কর্মকর্তা একটি বিবৃতিতে ইসরাইলকে সতর্ক করে বলেছেন, ‘প্রতিরোধের নেতাদের হত্যার প্রচেষ্টার (অবিলম্বে) দেরি না করে একটি নিষ্পত্তিমূলক জবাব দেওয়া হবে।’ ইসরাইল সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সিরিয়ার সরকার-নিয়ন্ত্রিত অংশের অভ্যন্তরের লক্ষ্যবস্তুতে শত শত হামলা চালিয়েছে। যার মধ্যে দামেস্ক ও আলেপ্পো বিমানবন্দরেও হামলা চালানো হয়েছে। তবে অভিযানগুলোকে খুব কমই স্বীকার করে বা আলোচনা করে।