০৬:৪৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

বঙ্গবাজার অগ্নিকাণ্ড : কাজ হারানোর শঙ্কায় কর্মচারীরা

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৫:৫৮:২৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ এপ্রিল ২০২৩
  • / ১১০ বার পড়া হয়েছে

রাজধানীর বঙ্গবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় প্রায় ৫ হাজার দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে দাবি করেছে দোকান মালিক সমিতি। আর এই ঘটনায় দুই হাজার কোটি টাকার মালামাল পুড়ে গেছে। ফলে ব্যবসায়ীরা সব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। একই সঙ্গে ঈদের আগে এসব মার্কেটের অর্ধ লাখ কর্মচারী বেকার হয়ে পড়ার এবং বেতন না পাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

তাই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ব্যবসায়ীদের মতো কান্নায় ভেঙে পড়তে দেখা গেছে অনেক কর্মচারীকে। তারা বলছেন, যারা কর্মচারী তাদের হাতে কোনো টাকা পয়সা নেই। তারা কীভাবে পরিবার-পরিজন নিয়ে চলবে। একটি দোকানের কর্মচারী জাকির হোসেন বলেন, আগুনে পুড়ে যাওয়া মার্কেটগুলো লাখের ওপরে কর্মচারী রয়েছে।

অধিকাংশ দোকানে কর্মচারী গত মাসেরও বেতন পায়নি। এর মধ্যে আগুনে মার্কেটের সব পুড়ে গেছে। এখন মালিক কবে গত মাসের বেতন দেবে সেটাও জানি না। আর ঈদের আগে মার্কেট ঠিক করা সম্ভব হবে কি না, দোকান আবার খুলবে কি না সেটাও জানি না। এই অবস্থায় আমরা কীভাবে ঈদ করব বলেন। কীভাবে ঘর ভাড়া দেবে, কীভাবে ছেলে-মেয়ে, মা-বাপেরে টাকা পাঠামু?

আরেকটি দোকানের কর্মচারী হেলাল বলেন, মালিকরা তো আগুনের ঘটনা দেখিয়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে পারবে। সরকারও তাদের সহযোগিতা করবে। কিন্তু আমরা তো সেটা পারবো না। মালিক বেতন না দিলে তো কিছু করার নেই। মালিক যদি বলে, আগুনে সবকিছু পুড়ে গেছে, কীভাবে বেতন দেবো, তখন আমরা কি করবো। আবার এখন তো কোথাও চাকরি পাবো না। কিছুই মাথায় আসছে না, কী করব। কীভাবে ঈদ করব পরিবার নিয়ে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

বঙ্গবাজার অগ্নিকাণ্ড : কাজ হারানোর শঙ্কায় কর্মচারীরা

আপডেট সময় ০৫:৫৮:২৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ এপ্রিল ২০২৩

রাজধানীর বঙ্গবাজারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় প্রায় ৫ হাজার দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে দাবি করেছে দোকান মালিক সমিতি। আর এই ঘটনায় দুই হাজার কোটি টাকার মালামাল পুড়ে গেছে। ফলে ব্যবসায়ীরা সব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। একই সঙ্গে ঈদের আগে এসব মার্কেটের অর্ধ লাখ কর্মচারী বেকার হয়ে পড়ার এবং বেতন না পাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

তাই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ব্যবসায়ীদের মতো কান্নায় ভেঙে পড়তে দেখা গেছে অনেক কর্মচারীকে। তারা বলছেন, যারা কর্মচারী তাদের হাতে কোনো টাকা পয়সা নেই। তারা কীভাবে পরিবার-পরিজন নিয়ে চলবে। একটি দোকানের কর্মচারী জাকির হোসেন বলেন, আগুনে পুড়ে যাওয়া মার্কেটগুলো লাখের ওপরে কর্মচারী রয়েছে।

অধিকাংশ দোকানে কর্মচারী গত মাসেরও বেতন পায়নি। এর মধ্যে আগুনে মার্কেটের সব পুড়ে গেছে। এখন মালিক কবে গত মাসের বেতন দেবে সেটাও জানি না। আর ঈদের আগে মার্কেট ঠিক করা সম্ভব হবে কি না, দোকান আবার খুলবে কি না সেটাও জানি না। এই অবস্থায় আমরা কীভাবে ঈদ করব বলেন। কীভাবে ঘর ভাড়া দেবে, কীভাবে ছেলে-মেয়ে, মা-বাপেরে টাকা পাঠামু?

আরেকটি দোকানের কর্মচারী হেলাল বলেন, মালিকরা তো আগুনের ঘটনা দেখিয়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে পারবে। সরকারও তাদের সহযোগিতা করবে। কিন্তু আমরা তো সেটা পারবো না। মালিক বেতন না দিলে তো কিছু করার নেই। মালিক যদি বলে, আগুনে সবকিছু পুড়ে গেছে, কীভাবে বেতন দেবো, তখন আমরা কি করবো। আবার এখন তো কোথাও চাকরি পাবো না। কিছুই মাথায় আসছে না, কী করব। কীভাবে ঈদ করব পরিবার নিয়ে।