০৯:২৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪

বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রেখেছে জাতিসংঘ

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১০:৪৬:২৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৬৭ বার পড়া হয়েছে

বছরব্যাপী বাংলাদেশে জাতিসংঘ কান্ট্রি টিম এ দেশের টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে অগ্রগতির সুরক্ষা ও প্রচারে জনগণ এবং বাংলাদেশ সরকারকে সমর্থন অব্যাহত রেখেছে। বাংলাদেশে জাতিসংঘ কার্যালয় তাদের ২০২২ সালের মূল প্রকল্প ও কর্মকাণ্ড নিয়ে একটি বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

মঙ্গলবার (৪ এপ্রিল) জাতিসংঘ বাংলাদেশ আবাসিক সমন্বয়কারীর অফিস থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউনাইটেড নেশনস সাসটেইনেবল কো-অপারেশন ফ্রেমওয়ার্ক (ইউএনএসডিসিএফ) ২০২২-২০২৬ পর্যন্ত প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রথম বছরে এ দেশে পরিচালিত বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে লাখ লাখ মানুষ প্রত্যক্ষভাবে উপকৃত হয়েছে।

টেকসই উন্নয়ন অর্জনে সহায়তার অগ্রগতির পাশাপাশি জলবায়ু-সম্পর্কিত বিপর্যয় এবং রোহিঙ্গাদের মানবিক সংকটে সাড়া প্রদানের জন্য এ দেশের প্রস্তুতি, জাতিসংঘ কান্ট্রি টিম এবং মানবিক সাড়া প্রদানকারী অংশীদাররা জোরদার সমর্থন করেছে।প্রতিবেদনটি উপস্থাপনের সময় বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী গোয়েন লুইস একটি বিবৃতি দিয়েছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, ২০২২ সালের চ্যালেঞ্জিং বৈশ্বিক পরিবেশ সত্ত্বেও জাতিসংঘ এ দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, নীতিমালা জোরদার করার পাশাপাশি কতগুলো ধারাবাহিক উদ্যোগ ও সেবা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারকে অগ্রসরমান সহায়তা প্রদান অব্যাহত রেখেছে। খাদ্য নিরাপত্তা, পুষ্টি, পানি, পয়ঃনিষ্কাশন ও স্বাস্থ্যবিধি, শিক্ষা, শিশু সুরক্ষা, জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতায় বেঁচে যাওয়া মানুষগুলোর জন্য সহায়তা, নিরাপদ, বৈধ ও নিয়মিত অভিবাসন, সামাজিক সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্যক্ষেত্র জোরদার করার প্রয়াস অব্যাহত রয়েছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের জন্য জাতিসংঘ এ দেশের জনগণ ও সরকারকে অগ্রসরমান সহায়তা প্রদান অব্যাহত রেখেছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ২০২২ সালে রোহিঙ্গা সংক্রান্ত মানবিক সংকট মোকাবিলার লক্ষ্যে ওই বছরের শেষ নাগাদ যৌথ সহায়তা পরিকল্পনার (জেআরপি) আওতায় ৮৮১ মিলিয়ন ইউএস ডলারের একটি অগ্রাধিকারভিত্তিক আবেদনের ৫৯ শতাংশ তহবিল (৫২০.৫ মিলিয়ন ইউএস ডলার) সংগৃহীত হয়। ওই তহবিলের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ মানবিক ও মৌলিক সেবাগুলো সফলভাবে প্রদান করা হয়। প্রতিবেদনটিতে বাংলাদেশে জাতিসংঘের কাজের একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ তুলে ধরা হয়— যা তিনটি অধ্যায় নিয়ে গঠিত।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রেখেছে জাতিসংঘ

আপডেট সময় ১০:৪৬:২৩ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ এপ্রিল ২০২৩

বছরব্যাপী বাংলাদেশে জাতিসংঘ কান্ট্রি টিম এ দেশের টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে অগ্রগতির সুরক্ষা ও প্রচারে জনগণ এবং বাংলাদেশ সরকারকে সমর্থন অব্যাহত রেখেছে। বাংলাদেশে জাতিসংঘ কার্যালয় তাদের ২০২২ সালের মূল প্রকল্প ও কর্মকাণ্ড নিয়ে একটি বার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

মঙ্গলবার (৪ এপ্রিল) জাতিসংঘ বাংলাদেশ আবাসিক সমন্বয়কারীর অফিস থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউনাইটেড নেশনস সাসটেইনেবল কো-অপারেশন ফ্রেমওয়ার্ক (ইউএনএসডিসিএফ) ২০২২-২০২৬ পর্যন্ত প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রথম বছরে এ দেশে পরিচালিত বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে লাখ লাখ মানুষ প্রত্যক্ষভাবে উপকৃত হয়েছে।

টেকসই উন্নয়ন অর্জনে সহায়তার অগ্রগতির পাশাপাশি জলবায়ু-সম্পর্কিত বিপর্যয় এবং রোহিঙ্গাদের মানবিক সংকটে সাড়া প্রদানের জন্য এ দেশের প্রস্তুতি, জাতিসংঘ কান্ট্রি টিম এবং মানবিক সাড়া প্রদানকারী অংশীদাররা জোরদার সমর্থন করেছে।প্রতিবেদনটি উপস্থাপনের সময় বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী গোয়েন লুইস একটি বিবৃতি দিয়েছেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, ২০২২ সালের চ্যালেঞ্জিং বৈশ্বিক পরিবেশ সত্ত্বেও জাতিসংঘ এ দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, নীতিমালা জোরদার করার পাশাপাশি কতগুলো ধারাবাহিক উদ্যোগ ও সেবা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারকে অগ্রসরমান সহায়তা প্রদান অব্যাহত রেখেছে। খাদ্য নিরাপত্তা, পুষ্টি, পানি, পয়ঃনিষ্কাশন ও স্বাস্থ্যবিধি, শিক্ষা, শিশু সুরক্ষা, জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতায় বেঁচে যাওয়া মানুষগুলোর জন্য সহায়তা, নিরাপদ, বৈধ ও নিয়মিত অভিবাসন, সামাজিক সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্যক্ষেত্র জোরদার করার প্রয়াস অব্যাহত রয়েছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের জন্য জাতিসংঘ এ দেশের জনগণ ও সরকারকে অগ্রসরমান সহায়তা প্রদান অব্যাহত রেখেছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ২০২২ সালে রোহিঙ্গা সংক্রান্ত মানবিক সংকট মোকাবিলার লক্ষ্যে ওই বছরের শেষ নাগাদ যৌথ সহায়তা পরিকল্পনার (জেআরপি) আওতায় ৮৮১ মিলিয়ন ইউএস ডলারের একটি অগ্রাধিকারভিত্তিক আবেদনের ৫৯ শতাংশ তহবিল (৫২০.৫ মিলিয়ন ইউএস ডলার) সংগৃহীত হয়। ওই তহবিলের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ মানবিক ও মৌলিক সেবাগুলো সফলভাবে প্রদান করা হয়। প্রতিবেদনটিতে বাংলাদেশে জাতিসংঘের কাজের একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ তুলে ধরা হয়— যা তিনটি অধ্যায় নিয়ে গঠিত।