০৩:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

বিক্ষোভে উত্তাল ইসরায়েলের রাজপথ

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১০:২৪:৫৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১২ মার্চ ২০২৩
  • / ৯০ বার পড়া হয়েছে

বিচারব্যবস্থা সংস্কারের প্রতিবাদে টানা ১০ সপ্তাহ ধরে ইসরায়েলে বিক্ষোভ চলছে। শনিবারও দেশটির বিভিন্ন শহরে লাখ লাখ ইসরায়েল নাগরিক বিক্ষোভ করেছে।রোববার (১২ মার্চ) আলজাজিরা এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায়।

আয়োজনকারীসহ অনেকেই বলছেন, বিক্ষোভে ৫ লাখের বেশি মানুষ অংশ নিয়েছে। যা ইসরায়েলের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় সমাবেশ। যদিও ইসরায়েলি গণমাধ্যমগুলো বলছে, সমাবেশে আড়াই থেকে ৩ লাখ লোক অংশ নেয়। এদিকে সুপ্রিম কোর্টের ক্ষমতা কমিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহুর পরিকল্পনার বিরুদ্ধে গত ১০ সপ্ত‍াহ ধরে দেশটিতে বিক্ষোভ চলছে। যদিও নেতানিয়াহু সরকারের অভিযোগ, বিরোধী দল থেকে এই বিক্ষোভে উসকানি দেওয়া হচ্ছে।

সমালোচকরা বলছেন, বিচারব্যবস্থা সংস্কার প্রস্তাব পাস হলে বিচারবিভাগ তার স্বাধীনতা হারাবে এবং সরকার দ্বারা পরিচালিত হবে। এই সংস্কারের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ১২০ সদস্যের পার্লামেন্টে সুপ্রিমকোর্টের কোনো সিদ্ধান্ত বাতিল করার ক্ষেত্রে ৬১টি সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটই হবে যথেষ্ট। বিক্ষোভকারীরা বলছেন, বিচারব্যবস্থা সংস্কার করা হলে প্রধানমন্ত্রী ও তার সহযোগীদের হাতে সব ক্ষমতা চলে যাবে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

বিক্ষোভে উত্তাল ইসরায়েলের রাজপথ

আপডেট সময় ১০:২৪:৫৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১২ মার্চ ২০২৩

বিচারব্যবস্থা সংস্কারের প্রতিবাদে টানা ১০ সপ্তাহ ধরে ইসরায়েলে বিক্ষোভ চলছে। শনিবারও দেশটির বিভিন্ন শহরে লাখ লাখ ইসরায়েল নাগরিক বিক্ষোভ করেছে।রোববার (১২ মার্চ) আলজাজিরা এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায়।

আয়োজনকারীসহ অনেকেই বলছেন, বিক্ষোভে ৫ লাখের বেশি মানুষ অংশ নিয়েছে। যা ইসরায়েলের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় সমাবেশ। যদিও ইসরায়েলি গণমাধ্যমগুলো বলছে, সমাবেশে আড়াই থেকে ৩ লাখ লোক অংশ নেয়। এদিকে সুপ্রিম কোর্টের ক্ষমতা কমিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহুর পরিকল্পনার বিরুদ্ধে গত ১০ সপ্ত‍াহ ধরে দেশটিতে বিক্ষোভ চলছে। যদিও নেতানিয়াহু সরকারের অভিযোগ, বিরোধী দল থেকে এই বিক্ষোভে উসকানি দেওয়া হচ্ছে।

সমালোচকরা বলছেন, বিচারব্যবস্থা সংস্কার প্রস্তাব পাস হলে বিচারবিভাগ তার স্বাধীনতা হারাবে এবং সরকার দ্বারা পরিচালিত হবে। এই সংস্কারের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ১২০ সদস্যের পার্লামেন্টে সুপ্রিমকোর্টের কোনো সিদ্ধান্ত বাতিল করার ক্ষেত্রে ৬১টি সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটই হবে যথেষ্ট। বিক্ষোভকারীরা বলছেন, বিচারব্যবস্থা সংস্কার করা হলে প্রধানমন্ত্রী ও তার সহযোগীদের হাতে সব ক্ষমতা চলে যাবে।