০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪

বিদেশিদের কাছে বদনাম করাই একটা শ্রেণির অভ্যাস : প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৩:২৭:২৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মার্চ ২০২৩
  • / ৬৪ বার পড়া হয়েছে

বিদেশিদের কাছে গিয়ে দেশের বদনাম করাই একটা শ্রেণির অভ্যাস বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। র‍্যাবের ১৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে রোববার (১৯ মার্চ) রাজধানীর কুর্মিটোলায় র‍্যাব সদর দপ্তরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়ে দেশের বদনাম করে, প্রতিষ্ঠানকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তাদেরকে চিহ্নিত করতে হবে। তারা কেন এগুলো করছে সেটা খুঁজে বের করতে হবে। তিনি বলেন, আমার মনে হয় তারা এই বদনাম করে কিছু একটা সুবিধা পায়। অথচ, দেশবিরোধী এই শক্তি দেশের উন্নয়ন চোখে দেখে না।

শেখ হাসিনা বলেন, একটি দেশ র‌্যাবের ওপর স্যাংশন দিয়েছিল। এতে অনেকেই প্রথমে ঘাবড়ে গিয়েছিল। আমি বলেছিলাম, এখানে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। কারণ এটা আমাদের দেশ। কেউ অপরাধ করলে সেটা আমরা নিজেরাই বলবো। পরের কথা শুনে কেউ মন খারাপ করবেন না। তিনি বলেন, নিজের আত্মমর্যাদা বোধ নিয়ে চলতে হবে, আত্মবিশ্বাস নিয়ে চলতে হবে। সেটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় কথা।

সরকারপ্রধান বলেন, র‌্যাবকে ত্রিমাত্রিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে র‌্যাব সদস্যরা আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে। জঙ্গি দমনে র‌্যাব বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করেছে। তিনি বলেন, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় থাকায় বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর জঙ্গিবাদকে জিরো টলারেন্স হিসেবে ঘোষণা করে। শেখ হাসিনা বলেন, জঙ্গিদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান ছিল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। জঙ্গিবাদ কখনও কোনো দেশের উন্নতি করতে পারে না।

তিনি বলেন, মাদক, অগ্নিসন্ত্রাস, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, জঙ্গিবাদ দমনসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে র‌্যাবের বলিষ্ঠ ভূমিকা রয়েছে। পাহাড়েও জঙ্গিদের বিরুদ্ধে র‌্যাব দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে। জঙ্গিদের নেটওয়ার্ক ধরতে সক্ষম হয়েছে। র‌্যাব মানুষের মধ্যে আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন সরকারপ্রধান। শেখ হাসিনা বলেন, সাইবার ক্রাইমের বিরুদ্ধেও আমাদের যথাযথ সতর্ক থাকতে হবে এবং ব্যবস্থা নিতে হবে।

র‌্যাবসহ আমাদের সকল গোয়েন্দা সংস্থাকে যথাযথ ভূমিকা নিতে হবে। তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি মানুষের কল্যাণের জন্য, অকল্যাণের জন্য নয়। এই কথাটা সবাইকে মনে রাখতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের আরেকটা বোঝা হচ্ছে মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গা। প্রতিনিয়ত সেখানে নানা ধরনের অপরাধ ঘটছে। এ ব্যাপারেও সকলের আরও নজর দিতে হবে যেন কোনো ধরনের দুর্ঘটনা না ঘটতে পারে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

বিদেশিদের কাছে বদনাম করাই একটা শ্রেণির অভ্যাস : প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় ০৩:২৭:২৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মার্চ ২০২৩

বিদেশিদের কাছে গিয়ে দেশের বদনাম করাই একটা শ্রেণির অভ্যাস বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। র‍্যাবের ১৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে রোববার (১৯ মার্চ) রাজধানীর কুর্মিটোলায় র‍্যাব সদর দপ্তরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়ে দেশের বদনাম করে, প্রতিষ্ঠানকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তাদেরকে চিহ্নিত করতে হবে। তারা কেন এগুলো করছে সেটা খুঁজে বের করতে হবে। তিনি বলেন, আমার মনে হয় তারা এই বদনাম করে কিছু একটা সুবিধা পায়। অথচ, দেশবিরোধী এই শক্তি দেশের উন্নয়ন চোখে দেখে না।

শেখ হাসিনা বলেন, একটি দেশ র‌্যাবের ওপর স্যাংশন দিয়েছিল। এতে অনেকেই প্রথমে ঘাবড়ে গিয়েছিল। আমি বলেছিলাম, এখানে ঘাবড়ানোর কিছু নেই। কারণ এটা আমাদের দেশ। কেউ অপরাধ করলে সেটা আমরা নিজেরাই বলবো। পরের কথা শুনে কেউ মন খারাপ করবেন না। তিনি বলেন, নিজের আত্মমর্যাদা বোধ নিয়ে চলতে হবে, আত্মবিশ্বাস নিয়ে চলতে হবে। সেটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় কথা।

সরকারপ্রধান বলেন, র‌্যাবকে ত্রিমাত্রিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে র‌্যাব সদস্যরা আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে। জঙ্গি দমনে র‌্যাব বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করেছে। তিনি বলেন, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় থাকায় বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত হয়েছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর জঙ্গিবাদকে জিরো টলারেন্স হিসেবে ঘোষণা করে। শেখ হাসিনা বলেন, জঙ্গিদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান ছিল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। জঙ্গিবাদ কখনও কোনো দেশের উন্নতি করতে পারে না।

তিনি বলেন, মাদক, অগ্নিসন্ত্রাস, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, জঙ্গিবাদ দমনসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে র‌্যাবের বলিষ্ঠ ভূমিকা রয়েছে। পাহাড়েও জঙ্গিদের বিরুদ্ধে র‌্যাব দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে। জঙ্গিদের নেটওয়ার্ক ধরতে সক্ষম হয়েছে। র‌্যাব মানুষের মধ্যে আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন সরকারপ্রধান। শেখ হাসিনা বলেন, সাইবার ক্রাইমের বিরুদ্ধেও আমাদের যথাযথ সতর্ক থাকতে হবে এবং ব্যবস্থা নিতে হবে।

র‌্যাবসহ আমাদের সকল গোয়েন্দা সংস্থাকে যথাযথ ভূমিকা নিতে হবে। তিনি বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ করেছি মানুষের কল্যাণের জন্য, অকল্যাণের জন্য নয়। এই কথাটা সবাইকে মনে রাখতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের আরেকটা বোঝা হচ্ছে মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গা। প্রতিনিয়ত সেখানে নানা ধরনের অপরাধ ঘটছে। এ ব্যাপারেও সকলের আরও নজর দিতে হবে যেন কোনো ধরনের দুর্ঘটনা না ঘটতে পারে।