০১:৪০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

যুক্তরাজ্যকে মোমেন: বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে দুশ্চিন্তা করবেন না

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৯:১৩:৩১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩
  • / ৬৫ বার পড়া হয়েছে

বাংলাদেশের আগামী জাতীয় নির্বাচন নিয়ে ইন্দো-প্যাসিফিক বিষয়ক ব্রিটিশ প্রতিমন্ত্রী অ্যান-মারি ট্রিভেলিয়ানকে দুশ্চিন্তা না করার জন্য বলেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। রোববার (১২ মার্চ) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ব্রিটিশ প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতে তিনি এ কথা বলেন।

সাক্ষাত শেষে সাংবাদিকদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ওনারা জানতে চাননি। তবে আমরা একটা বিশ্বাসযোগ্য, স্বচ্ছ, সুন্দর ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে চাই এ কথা আমিই বলেছি। আমি তাকে জানিয়েছি যে, স্বচ্ছ নির্বাচনের জন্য যেসব প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা উচিত আমরা সেগুলো তৈরি করেছি। নির্বাচন কমিশনকে অসংখ্য ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনের সময় তারা যা চায় তাই করতে পারে।

তখন অন্য কারও ক্ষমতা অ্যাপ্লাই (প্রয়োগ) করতে পারে না। আমাদের বিশ্বাস জনগণ আমাদের ভোট দেবে। আমরা জনগণের ওপর বিশ্বাস রাখি। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিস্তর আলাপ হয়েছে। ওটাই আজকের আলোচনার মূল ইস্যু ছিল। মিয়ানমারে সেনা শাসন আসার পর তাদের সঙ্গে আমাদের ডায়ালগ হয়েছে কি না জানতে চেয়েছেন তিনি। আমরা বললাম, হয়েছে।

শিগগিরই রোহিঙ্গাদের অবস্থান দেখতে মিয়ানমার থেকে একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফর করবেন। প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন ইস্যুতে গত বুধ ও বৃহস্পতিবার দুই দিনের জন্য রাখাইনের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে বাংলাদেশ, ভারত, চীন ও আসিয়ানের আটটি দেশসহ মোট ১১টি দেশের রাষ্ট্রদূত বা কনসাল জেনারেলদের রাখাইনে বিভিন্ন জায়গা পরিদর্শন করিয়েছে মিয়ানমার।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

যুক্তরাজ্যকে মোমেন: বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে দুশ্চিন্তা করবেন না

আপডেট সময় ০৯:১৩:৩১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩

বাংলাদেশের আগামী জাতীয় নির্বাচন নিয়ে ইন্দো-প্যাসিফিক বিষয়ক ব্রিটিশ প্রতিমন্ত্রী অ্যান-মারি ট্রিভেলিয়ানকে দুশ্চিন্তা না করার জন্য বলেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। রোববার (১২ মার্চ) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ব্রিটিশ প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতে তিনি এ কথা বলেন।

সাক্ষাত শেষে সাংবাদিকদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ওনারা জানতে চাননি। তবে আমরা একটা বিশ্বাসযোগ্য, স্বচ্ছ, সুন্দর ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে চাই এ কথা আমিই বলেছি। আমি তাকে জানিয়েছি যে, স্বচ্ছ নির্বাচনের জন্য যেসব প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা উচিত আমরা সেগুলো তৈরি করেছি। নির্বাচন কমিশনকে অসংখ্য ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনের সময় তারা যা চায় তাই করতে পারে।

তখন অন্য কারও ক্ষমতা অ্যাপ্লাই (প্রয়োগ) করতে পারে না। আমাদের বিশ্বাস জনগণ আমাদের ভোট দেবে। আমরা জনগণের ওপর বিশ্বাস রাখি। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিস্তর আলাপ হয়েছে। ওটাই আজকের আলোচনার মূল ইস্যু ছিল। মিয়ানমারে সেনা শাসন আসার পর তাদের সঙ্গে আমাদের ডায়ালগ হয়েছে কি না জানতে চেয়েছেন তিনি। আমরা বললাম, হয়েছে।

শিগগিরই রোহিঙ্গাদের অবস্থান দেখতে মিয়ানমার থেকে একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফর করবেন। প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন ইস্যুতে গত বুধ ও বৃহস্পতিবার দুই দিনের জন্য রাখাইনের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে বাংলাদেশ, ভারত, চীন ও আসিয়ানের আটটি দেশসহ মোট ১১টি দেশের রাষ্ট্রদূত বা কনসাল জেনারেলদের রাখাইনে বিভিন্ন জায়গা পরিদর্শন করিয়েছে মিয়ানমার।