০৩:০০ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪

রাজধানীতে দেড় হাজার ভবন ঝুঁকিপূর্ণ : ফায়ার সার্ভিস

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৫:৩৩:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৬২ বার পড়া হয়েছে

রাজধানীর মার্কেট, হোটেল, রেস্তোরাঁ ও আবাসিকসহ ১ হাজার ৫১১টি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স। আর চলতি বছরের হালনাগাদ তালিকায় রাজধানীর ৫৮টি মার্কেট ও শপিং মল ঝুঁকিপূর্ণ। এর মধ্যে ৯টি মার্কেট অতি ঝুঁকিপূর্ণ। মাঝারি ঝুঁকিপূর্ণ ১৪টি এবং ঝুঁকিতে আছে দুটি।

রোববার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ মার্কেট-শপিং মলে অগ্নিঝুঁকি নিরসন ও অগ্নিনিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ বিষয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের পরিচালক অপারেশন লে. কর্নেল মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী। তাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, বিল্ডিং কোড না মেনে ভবন ভাঙা হয়। মার্কেটের খালি স্থানে দোকান করা হয়, মালামাল রাখা হয়।

নিয়মের কোনো তোয়াক্কা করা হয় না। মালিক ও ভবন কর্তৃপক্ষ কারও কথা শোনে না বলেই আগুন লাগলে তা নেভাতে কষ্ট হয়ে যায়। এই কর্মকর্তা বলেন, আমরা মার্কেটগুলোতে যাই, পরিদর্শন করে চিঠিও দিই। স্বাক্ষর নিয়ে আসি। রাজধানীর কোন কোন মার্কেট ঝুঁকিতে আছে তা আমরা লিস্ট করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিই। তিনি আরও বলেন, মার্কেটের ভেতরে নিয়মনীতি না মেনে থাকা ও পণ্য মজুত করার কারণে আগুন লেগে গেলে নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে যায়।

তাই ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরও বেড়ে যাচ্ছে। বঙ্গবাজারে তদন্ত করে নাশকতার কোনো প্রমাণ এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি, তবে তদন্ত এখনও শেষ হয়নি। তদন্ত শেষ হলে পরিপূর্ণ রিপোর্ট সংবাদমাধ্যমে জানানো হবে বলে জানান তাজুল ইসলাম। ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক বলেন, মার্কেটের ব্যবসায়ী ও মালিক সমিতিকে আমরা বলতে চাই, আপনারা মার্কেটের বিভিন্ন পয়েন্টে সারা রাত নিজস্ব লোক নিয়োগ দিন।

এতে করে যে শুধু নাশকতা রোধ করা যাবে তা না, বর্তমানে দেশের তাপমাত্রা বেশি, যদি অতিরিক্ত তাপমাত্রার কারণে মার্কেটের কোনো দাহ্য পদার্থে আগুন লাগে, তারা প্রাথমিকভাবে আগুন নেভাতে কাজ করবে। এ ছাড়া তিনি দেশের মার্কেটগুলোতে রাতে ধূমপান না করা, রান্না না করার নির্দেশনা দিয়েছেন।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

রাজধানীতে দেড় হাজার ভবন ঝুঁকিপূর্ণ : ফায়ার সার্ভিস

আপডেট সময় ০৫:৩৩:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৩

রাজধানীর মার্কেট, হোটেল, রেস্তোরাঁ ও আবাসিকসহ ১ হাজার ৫১১টি ভবন ঝুঁকিপূর্ণ বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স। আর চলতি বছরের হালনাগাদ তালিকায় রাজধানীর ৫৮টি মার্কেট ও শপিং মল ঝুঁকিপূর্ণ। এর মধ্যে ৯টি মার্কেট অতি ঝুঁকিপূর্ণ। মাঝারি ঝুঁকিপূর্ণ ১৪টি এবং ঝুঁকিতে আছে দুটি।

রোববার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ মার্কেট-শপিং মলে অগ্নিঝুঁকি নিরসন ও অগ্নিনিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ বিষয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের পরিচালক অপারেশন লে. কর্নেল মো. তাজুল ইসলাম চৌধুরী। তাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, বিল্ডিং কোড না মেনে ভবন ভাঙা হয়। মার্কেটের খালি স্থানে দোকান করা হয়, মালামাল রাখা হয়।

নিয়মের কোনো তোয়াক্কা করা হয় না। মালিক ও ভবন কর্তৃপক্ষ কারও কথা শোনে না বলেই আগুন লাগলে তা নেভাতে কষ্ট হয়ে যায়। এই কর্মকর্তা বলেন, আমরা মার্কেটগুলোতে যাই, পরিদর্শন করে চিঠিও দিই। স্বাক্ষর নিয়ে আসি। রাজধানীর কোন কোন মার্কেট ঝুঁকিতে আছে তা আমরা লিস্ট করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিই। তিনি আরও বলেন, মার্কেটের ভেতরে নিয়মনীতি না মেনে থাকা ও পণ্য মজুত করার কারণে আগুন লেগে গেলে নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে যায়।

তাই ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরও বেড়ে যাচ্ছে। বঙ্গবাজারে তদন্ত করে নাশকতার কোনো প্রমাণ এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি, তবে তদন্ত এখনও শেষ হয়নি। তদন্ত শেষ হলে পরিপূর্ণ রিপোর্ট সংবাদমাধ্যমে জানানো হবে বলে জানান তাজুল ইসলাম। ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক বলেন, মার্কেটের ব্যবসায়ী ও মালিক সমিতিকে আমরা বলতে চাই, আপনারা মার্কেটের বিভিন্ন পয়েন্টে সারা রাত নিজস্ব লোক নিয়োগ দিন।

এতে করে যে শুধু নাশকতা রোধ করা যাবে তা না, বর্তমানে দেশের তাপমাত্রা বেশি, যদি অতিরিক্ত তাপমাত্রার কারণে মার্কেটের কোনো দাহ্য পদার্থে আগুন লাগে, তারা প্রাথমিকভাবে আগুন নেভাতে কাজ করবে। এ ছাড়া তিনি দেশের মার্কেটগুলোতে রাতে ধূমপান না করা, রান্না না করার নির্দেশনা দিয়েছেন।