০৫:৫১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রাজসিক সংবর্ধনা শেষে নিকুঞ্জের বাসায় আবদুল হামিদ

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৮:১৬:৩৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৪৫ বার পড়া হয়েছে

টানা দুই মেয়াদে ১০ বছরের বেশি সময় রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন শেষে বঙ্গভবন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় নিয়েছেন মো. আবদুল হামিদ। এর পরেই তিনি উঠেছেন তার নিকুঞ্জের বাসায়। সোমবার (২৪ এপ্রিল) দুপুর ২টায় তিনি নিকুঞ্জের বাসায় পৌঁছান।

এমন একটি সময় স্মরণীয় করে রাখতে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিকরা। এ সময় সাংবাদিকদের মাধ্যমে পুরো দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, দেশবাসীর এবং আমার এলাকার মানুষের দোয়া ছিল বলেই আমি দীর্ঘমেয়াদে জনগণকে সেবা দিতে পেরেছি।

অপরদিকে প্রধানমন্ত্রী আমাকে কোনো প্রকার বাধা ছাড়াই কাজ করার সুযোগ দিয়েছেন, সে জন্য আমি তার প্রতিও কৃতজ্ঞ। এ দেশের মানুষ আমাকে সর্বোচ্চ মর্যাদা দিয়েছে। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পদে দুই মেয়াদে নির্বাচিত করেছে। আবার রাজনীতি করলে এ দেশের মানুষকে হেয় করা হবে। সেটা আমি করব না। সাংবাদিকদের সঙ্গে রসিকতা করে সাবেক এ রাষ্ট্রপতি বলেন, অনেক সময় বলেছি, আমি বন্দি জীবনে আছি।

এর থেকে আমি মুক্তি পাচ্ছি। এখন সাধারণ নাগরিক হিসেবে স্বাচ্ছন্দ্যে চলাফেরা করতে পারব। এটাকেই তিনি সবচেয়ে বড় আনন্দ বলে অবহিত করেন। আমি আগেও বেশ কয়েকবার বলেছি, আমার বেশির ভাগ সময় থাকার ইচ্ছা হাওরে, ঢাকায়ও থাকতে হবে আবার কিশোরগঞ্জেও থাকতে হবে। তবে সবচেয়ে বেশি সময় থাকার ইচ্ছা হাওরে।

কিশোরগঞ্জের সন্তান আবদুল হামিদ ২০১৩ সালের মার্চ মাসে অস্থায়ী ও ২৪ এপ্রিল প্রথম দফায় দেশের ২০তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেন। এরপর ২০১৮ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে ২১তম রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব নেন। রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর বঙ্গভবনে ১০ বছরেরও বেশি সময় কেটেছে আবদুল হামিদের। রোববার (২৩ এপ্রিল) তার শেষ কর্মদিবস ছিল।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

রাজসিক সংবর্ধনা শেষে নিকুঞ্জের বাসায় আবদুল হামিদ

আপডেট সময় ০৮:১৬:৩৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৩

টানা দুই মেয়াদে ১০ বছরের বেশি সময় রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন শেষে বঙ্গভবন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় নিয়েছেন মো. আবদুল হামিদ। এর পরেই তিনি উঠেছেন তার নিকুঞ্জের বাসায়। সোমবার (২৪ এপ্রিল) দুপুর ২টায় তিনি নিকুঞ্জের বাসায় পৌঁছান।

এমন একটি সময় স্মরণীয় করে রাখতে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিকরা। এ সময় সাংবাদিকদের মাধ্যমে পুরো দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, দেশবাসীর এবং আমার এলাকার মানুষের দোয়া ছিল বলেই আমি দীর্ঘমেয়াদে জনগণকে সেবা দিতে পেরেছি।

অপরদিকে প্রধানমন্ত্রী আমাকে কোনো প্রকার বাধা ছাড়াই কাজ করার সুযোগ দিয়েছেন, সে জন্য আমি তার প্রতিও কৃতজ্ঞ। এ দেশের মানুষ আমাকে সর্বোচ্চ মর্যাদা দিয়েছে। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পদে দুই মেয়াদে নির্বাচিত করেছে। আবার রাজনীতি করলে এ দেশের মানুষকে হেয় করা হবে। সেটা আমি করব না। সাংবাদিকদের সঙ্গে রসিকতা করে সাবেক এ রাষ্ট্রপতি বলেন, অনেক সময় বলেছি, আমি বন্দি জীবনে আছি।

এর থেকে আমি মুক্তি পাচ্ছি। এখন সাধারণ নাগরিক হিসেবে স্বাচ্ছন্দ্যে চলাফেরা করতে পারব। এটাকেই তিনি সবচেয়ে বড় আনন্দ বলে অবহিত করেন। আমি আগেও বেশ কয়েকবার বলেছি, আমার বেশির ভাগ সময় থাকার ইচ্ছা হাওরে, ঢাকায়ও থাকতে হবে আবার কিশোরগঞ্জেও থাকতে হবে। তবে সবচেয়ে বেশি সময় থাকার ইচ্ছা হাওরে।

কিশোরগঞ্জের সন্তান আবদুল হামিদ ২০১৩ সালের মার্চ মাসে অস্থায়ী ও ২৪ এপ্রিল প্রথম দফায় দেশের ২০তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেন। এরপর ২০১৮ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে ২১তম রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব নেন। রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর বঙ্গভবনে ১০ বছরেরও বেশি সময় কেটেছে আবদুল হামিদের। রোববার (২৩ এপ্রিল) তার শেষ কর্মদিবস ছিল।