০৮:৩৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪

রোগীদের হয়রানি করবেন না, চিকিৎসকদের রাষ্ট্রপতি

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১০:১৮:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩
  • / ৬০ বার পড়া হয়েছে

রোগীদের সঙ্গে দায়িত্বশীল আচরণ করার জন্য চিকিৎসকদের জোর তাগিদ দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, কোনো প্রয়োজন ছাড়া বড় বড় টেস্ট দিয়ে রোগীদের হয়রানি করবেন না। অসুস্থ প্রতিযোগিতা বন্ধ করতে হবে।

সোমবার (১৩ মার্চ) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) চতুর্থ সমাবর্তন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। রাষ্ট্রপতি বলেন, রোগাক্রান্ত মানুষ সৃষ্টিকর্তার পর চিকিৎসকের ওপর ভরসা রাখেন। তাই, চিকিৎসকদের ভালো ব্যবহার ও সেবা যেকোনো রোগীর পরম কাম্য। তিনি বলেন, কিছু অসাধু ও প্রতারক চিকিৎসকের জন্য যেন গোটা চিকিৎসক সমাজের সুনাম ক্ষুণ্ন না হয়, সেদিকে সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে।

গণমাধ্যমে প্রায়ই দেখা যায়, ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলো রোগীদের জিম্মি করে ব্যবসা করে। এসবের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে হবে। আবদুল হামিদ বলেন, বিএসএমএমইউয়ের আউটডোরে প্রায়ই সকালে ল্যাবরেটরি বিভাগ খোলা হয় না বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। এর ফলে রোগীদের রিপোর্ট সংগ্রহে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর নামে প্রতিষ্ঠিত এই বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো ধরনের অবহেলা ও দায়িত্বহীনতার সুযোগ নেই।

অনুষ্ঠানে ‘সমাবর্তন বক্তা’ হিসেবে বক্তব্য রাখেন ভারতীয় ইউনিভার্সিটি সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক রাজ-বর্ধন আজাদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক, বিএসএমএমইউয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. মোশাররফ হোসেন, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমদ, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. মনিরুজ্জামান খান প্রমুখ।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

রোগীদের হয়রানি করবেন না, চিকিৎসকদের রাষ্ট্রপতি

আপডেট সময় ১০:১৮:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩

রোগীদের সঙ্গে দায়িত্বশীল আচরণ করার জন্য চিকিৎসকদের জোর তাগিদ দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, কোনো প্রয়োজন ছাড়া বড় বড় টেস্ট দিয়ে রোগীদের হয়রানি করবেন না। অসুস্থ প্রতিযোগিতা বন্ধ করতে হবে।

সোমবার (১৩ মার্চ) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) চতুর্থ সমাবর্তন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। রাষ্ট্রপতি বলেন, রোগাক্রান্ত মানুষ সৃষ্টিকর্তার পর চিকিৎসকের ওপর ভরসা রাখেন। তাই, চিকিৎসকদের ভালো ব্যবহার ও সেবা যেকোনো রোগীর পরম কাম্য। তিনি বলেন, কিছু অসাধু ও প্রতারক চিকিৎসকের জন্য যেন গোটা চিকিৎসক সমাজের সুনাম ক্ষুণ্ন না হয়, সেদিকে সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে।

গণমাধ্যমে প্রায়ই দেখা যায়, ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলো রোগীদের জিম্মি করে ব্যবসা করে। এসবের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে ব্যবস্থা নিতে হবে। আবদুল হামিদ বলেন, বিএসএমএমইউয়ের আউটডোরে প্রায়ই সকালে ল্যাবরেটরি বিভাগ খোলা হয় না বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। এর ফলে রোগীদের রিপোর্ট সংগ্রহে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর নামে প্রতিষ্ঠিত এই বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো ধরনের অবহেলা ও দায়িত্বহীনতার সুযোগ নেই।

অনুষ্ঠানে ‘সমাবর্তন বক্তা’ হিসেবে বক্তব্য রাখেন ভারতীয় ইউনিভার্সিটি সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক রাজ-বর্ধন আজাদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ডা. জাহিদ মালেক, বিএসএমএমইউয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. মোশাররফ হোসেন, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমদ, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. মনিরুজ্জামান খান প্রমুখ।