০৭:৫২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

শামীমের ক্যারিয়ার-সেরা ইনিংসে লড়াইয়ের পুঁজি বাংলাদেশের

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৪:১৮:৪১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ মার্চ ২০২৩
  • / ৭৩ বার পড়া হয়েছে

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপর্যয়ের মুখে পড়েছিল বাংলাদেশ। সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মাঝে একপ্রান্ত আগলে ধরে রেখে ক্যারিয়ারের প্রথম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন তরুণ ব্যাটার শামীম হোসেন পাটওয়ারী। তার অনবদ্য ৫১ রানের ইনিংসে ১৯.২ ওভারে ১২৪ রানে থেমে যায় সাকিব আল হাসানের দল। তবে হোয়াইটওয়াশের লক্ষ্যে অল্পতেই গুঁটিয়ে যাওয়ার শঙ্কার পড়ার পরও লড়াকু সংগ্রহ পেয়েছে স্বাগতিকরা।

আজ (৩১ মার্চ) সাগরিকায় চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরুতে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ইনিংসের প্রথম বলেই আইরিশ পেসার ফিওন হ্যান্ডকে চার মেরে শুরু করেছিলেন লিটন দাস। তবে সেই গতি আর ধরে রাখতে পারেননি দেশ সেরা এই ব্যাটার। দ্বিতীয় ওভারে মার্ক এডেইয়ারের প্রথম বলে অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বলে স্ল্যাশ করতে গিয়ে থার্ডম্যানে ক্যাচ তুলেছেন তিনি। ৫ রান করেই আউট হয়েছেন লিটন। ফলে ৯১ ও ১২৪ রানের পর এবার ওপেনিং জুটি মাত্র ৯ রানেই ভেঙে যায়।

এরপর তৃতীয় ওভারের শেষ বলে পার্ট টাইম স্পিনার হ্যারি টেক্টরের বলে কার্টিশ ক্যাম্পারের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন নাজমুল হোসেন শান্ত। বিদায়ের আগে ৮ বলে ৪ রান করেন তিনি। এরপর দ্রুতই বিদায় নেন আরেক ওপেনার রনি তালুকদারও। জোড়া উইকেট হারানোর পরও তার আক্রমণাত্মক ব্যাটে আশা দেখাচ্ছিল একটু। তবে দলের রান ২৪ থাকতেই ব্যক্তিগত ১৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন তিনি। এদিন ব্যর্থতার মিছিলে যোগ দেন সাকিব নিজেও। পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে পুল করতে গিয়ে হোয়াইটের হাতে সহজ ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন টাইগার অধিনায়ক। সাজঘরে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে এসেছে ৬ রান।

দলীয় ৪১ রানের মাথায় নিজের উইকেট বিলিয়ে দেন তাওহিদ হৃদয়। হোয়াইটের বলে হ্যারি টেক্টরের হাতে ক্যাচ দিয়ে সমান এক চার-ছক্কায় ১২ রান করেন তরুণ এই ব্যাটার। এরপর দলীয় ৬১ রানের মাথায় জোড়া উইকেট হারায় বাংলাদেশ। অভিষিক্ত রিশাদ হোসেন ৮ রান করে বিদায় নেওয়ার পর শূন্য হাতেই ফেরেন তাসকিন। অষ্টম উইকেট জুটিতে নাসুমকে নিয়ে ৩৩ রানের জুটি গড়েন শামীম। ডেলানির বলে আইরিশ ক্যাপ্টেন স্টার্লিংয়ের হাতে ক্যাচ দিয়ে ১৩ রান করে ফেরেন নাসুম। তবে অন্যপ্রান্তে দেখেশুনে ব্যাট চালিয়ে নিজের ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটির দেখা পেয়ে যান শামীম।

তবে ফিফটির পর পরই ইনিংসের শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে বিদায়ের আগে ৪২ বলে ৫১ রান করেন বাঁহাতি এই ব্যাটার। ফলে ১৯.২ ওভারে মাত্র ১২৪ রানে থেমে যায় টাইগারদের ইনিংস। বোলিংয়ে আইরিশদের হয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট শিকার করেছেন মার্ক এডেইয়ার। ম্যাথু হামফ্রিস পান ২ উইকেট। এ ছাড়া হ্যারি টেক্টর, কার্টিস ক্যাম্পার, বেন হোয়াইট, গ্যারেথ ডেলানি ও ফিওন হ্যান্ড প্রত্যেকে ১টি করে উইকেট পান।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

শামীমের ক্যারিয়ার-সেরা ইনিংসে লড়াইয়ের পুঁজি বাংলাদেশের

আপডেট সময় ০৪:১৮:৪১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ মার্চ ২০২৩

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপর্যয়ের মুখে পড়েছিল বাংলাদেশ। সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মাঝে একপ্রান্ত আগলে ধরে রেখে ক্যারিয়ারের প্রথম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন তরুণ ব্যাটার শামীম হোসেন পাটওয়ারী। তার অনবদ্য ৫১ রানের ইনিংসে ১৯.২ ওভারে ১২৪ রানে থেমে যায় সাকিব আল হাসানের দল। তবে হোয়াইটওয়াশের লক্ষ্যে অল্পতেই গুঁটিয়ে যাওয়ার শঙ্কার পড়ার পরও লড়াকু সংগ্রহ পেয়েছে স্বাগতিকরা।

আজ (৩১ মার্চ) সাগরিকায় চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরুতে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। ইনিংসের প্রথম বলেই আইরিশ পেসার ফিওন হ্যান্ডকে চার মেরে শুরু করেছিলেন লিটন দাস। তবে সেই গতি আর ধরে রাখতে পারেননি দেশ সেরা এই ব্যাটার। দ্বিতীয় ওভারে মার্ক এডেইয়ারের প্রথম বলে অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বলে স্ল্যাশ করতে গিয়ে থার্ডম্যানে ক্যাচ তুলেছেন তিনি। ৫ রান করেই আউট হয়েছেন লিটন। ফলে ৯১ ও ১২৪ রানের পর এবার ওপেনিং জুটি মাত্র ৯ রানেই ভেঙে যায়।

এরপর তৃতীয় ওভারের শেষ বলে পার্ট টাইম স্পিনার হ্যারি টেক্টরের বলে কার্টিশ ক্যাম্পারের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন নাজমুল হোসেন শান্ত। বিদায়ের আগে ৮ বলে ৪ রান করেন তিনি। এরপর দ্রুতই বিদায় নেন আরেক ওপেনার রনি তালুকদারও। জোড়া উইকেট হারানোর পরও তার আক্রমণাত্মক ব্যাটে আশা দেখাচ্ছিল একটু। তবে দলের রান ২৪ থাকতেই ব্যক্তিগত ১৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন তিনি। এদিন ব্যর্থতার মিছিলে যোগ দেন সাকিব নিজেও। পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে পুল করতে গিয়ে হোয়াইটের হাতে সহজ ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন টাইগার অধিনায়ক। সাজঘরে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে এসেছে ৬ রান।

দলীয় ৪১ রানের মাথায় নিজের উইকেট বিলিয়ে দেন তাওহিদ হৃদয়। হোয়াইটের বলে হ্যারি টেক্টরের হাতে ক্যাচ দিয়ে সমান এক চার-ছক্কায় ১২ রান করেন তরুণ এই ব্যাটার। এরপর দলীয় ৬১ রানের মাথায় জোড়া উইকেট হারায় বাংলাদেশ। অভিষিক্ত রিশাদ হোসেন ৮ রান করে বিদায় নেওয়ার পর শূন্য হাতেই ফেরেন তাসকিন। অষ্টম উইকেট জুটিতে নাসুমকে নিয়ে ৩৩ রানের জুটি গড়েন শামীম। ডেলানির বলে আইরিশ ক্যাপ্টেন স্টার্লিংয়ের হাতে ক্যাচ দিয়ে ১৩ রান করে ফেরেন নাসুম। তবে অন্যপ্রান্তে দেখেশুনে ব্যাট চালিয়ে নিজের ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটির দেখা পেয়ে যান শামীম।

তবে ফিফটির পর পরই ইনিংসের শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে বিদায়ের আগে ৪২ বলে ৫১ রান করেন বাঁহাতি এই ব্যাটার। ফলে ১৯.২ ওভারে মাত্র ১২৪ রানে থেমে যায় টাইগারদের ইনিংস। বোলিংয়ে আইরিশদের হয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট শিকার করেছেন মার্ক এডেইয়ার। ম্যাথু হামফ্রিস পান ২ উইকেট। এ ছাড়া হ্যারি টেক্টর, কার্টিস ক্যাম্পার, বেন হোয়াইট, গ্যারেথ ডেলানি ও ফিওন হ্যান্ড প্রত্যেকে ১টি করে উইকেট পান।