০৮:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

সময়মতো রপ্তানি আয় দেশে আনতে কঠোর নির্দেশনা

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১০:৫৭:৩০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মার্চ ২০২৩
  • / ৬৩ বার পড়া হয়েছে

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রপ্তানি আয় দেশে নিয়ে আসতে কঠোর নির্দেশনা জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগ সোমবার (৬ মার্চ) এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে ব্যাংকগুলোর সব অথরাইজড ডিলারস শাখায় পাঠিয়েছে।

সার্কুলারে বলা হয়, নির্ধারিত সময়ের পরে রপ্তানি আয় দেশে আনলে যে তারিখে তা দেশে আসার কথা ছিল, সে সময়ের রপ্তানি বিলের দর ধরে রপ্তানিকারকদের বিল পরিশোধ করতে হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রপ্তানি আয় দেশে না আনলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

সঠিক সময়ে রপ্তানি আয় দেশে আনার জন্য শৃঙ্খলা বজায় রাখতে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ফলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রপ্তানি নগদায়ন করতে না পারলে সংশ্লিষ্ট রপ্তানিকারকরা নতুন দরে রপ্তানি আয় পাবেন না। সার্কুলারে আরও বলা হয়, রপ্তানি আয় ১২০ দিনের মধ্যে দেশে আনার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

এ সময়ের মধ্যে রপ্তানি আয় আনতে না পারলে আগের দরই পাবেন তারা। প্রতি মাসের ১০ তারিখের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন জমা দিতে হবে। উল্লেখ্য, বর্তমানে ১০৪ টাকা দরে রপ্তানি বিল নগদায়ন করা হচ্ছে, যা কয়েক মাস আগেও ছিল ৯৯ টাকা। ধীরে ধীরে ৫ টাকা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। সবশেষ ১০৩ টাকায় রপ্তানি বিল নগদায়ন করা হচ্ছিল। গত সপ্তাহে আরও ১ টাকা বাড়িয়ে ১০৪ টাকা করা হয়।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

সময়মতো রপ্তানি আয় দেশে আনতে কঠোর নির্দেশনা

আপডেট সময় ১০:৫৭:৩০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মার্চ ২০২৩

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রপ্তানি আয় দেশে নিয়ে আসতে কঠোর নির্দেশনা জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগ সোমবার (৬ মার্চ) এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে ব্যাংকগুলোর সব অথরাইজড ডিলারস শাখায় পাঠিয়েছে।

সার্কুলারে বলা হয়, নির্ধারিত সময়ের পরে রপ্তানি আয় দেশে আনলে যে তারিখে তা দেশে আসার কথা ছিল, সে সময়ের রপ্তানি বিলের দর ধরে রপ্তানিকারকদের বিল পরিশোধ করতে হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রপ্তানি আয় দেশে না আনলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

সঠিক সময়ে রপ্তানি আয় দেশে আনার জন্য শৃঙ্খলা বজায় রাখতে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ফলে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রপ্তানি নগদায়ন করতে না পারলে সংশ্লিষ্ট রপ্তানিকারকরা নতুন দরে রপ্তানি আয় পাবেন না। সার্কুলারে আরও বলা হয়, রপ্তানি আয় ১২০ দিনের মধ্যে দেশে আনার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

এ সময়ের মধ্যে রপ্তানি আয় আনতে না পারলে আগের দরই পাবেন তারা। প্রতি মাসের ১০ তারিখের মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন জমা দিতে হবে। উল্লেখ্য, বর্তমানে ১০৪ টাকা দরে রপ্তানি বিল নগদায়ন করা হচ্ছে, যা কয়েক মাস আগেও ছিল ৯৯ টাকা। ধীরে ধীরে ৫ টাকা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। সবশেষ ১০৩ টাকায় রপ্তানি বিল নগদায়ন করা হচ্ছিল। গত সপ্তাহে আরও ১ টাকা বাড়িয়ে ১০৪ টাকা করা হয়।