০৬:০৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

সানি লিওনকে অকারণে হেনস্তা করা হচ্ছে!

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১২:৫৫:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মার্চ ২০২৩
  • / ৬৯ বার পড়া হয়েছে

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী সানি লিওন। ২০২২ সালের ১৬ নভেম্বর অভিনেত্রীসহ তার স্বামী ড্যানিয়েল এবং তাদের এক সহকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছিলেন এক ইভেন্ট ম্যানেজার।

তিনি অভিযোগ করেছিলেন, অনেক টাকা পারিশ্রমিক নিয়েও অনুষ্ঠানে এসে কোনো পারফর্ম করেননি সানি। আর এই ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে আনিত প্রতারণার অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন কেরালা হাইকোর্টের বিচারপতি বেচু কুরিয়েন থমাস।

তিনি বলেন, অকারণে হেনস্তা করার চেষ্টা চলছে অভিনেত্রী সানিকে। এর মধ্যে অপরাধ কোথায়, সেটাই বুঝতে পারছি না। এই মামলা বাতিল করার পক্ষে আমি। তবে তদন্ত যেন চলতে পারে, সে জন্য মামলার শুনানি চলবে। পরবর্তী মামলার শুনানি আগামী ৩১ মার্চ ঘোষণা করা হয়েছে।

ওই ঘটনায় তদন্তে দেখা গেছে, সানি পারফর্ম না করলেও, অভিযোগকারীর কোনো লোকসান হয়নি। সেই সঙ্গে অভিনেত্রীর পক্ষ থেকেও এমন ঘটনার কথা অস্বীকার করা হয়েছে। আর প্রমাণ হিসাবে যা পেশ করা হয়েছে, তা যথেষ্ট বলে মনে করেনি ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট। তাই উপযুক্ত প্রমাণের অভাবে মামলাটি সেখানেই বাতিল হয়ে যায়।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

সানি লিওনকে অকারণে হেনস্তা করা হচ্ছে!

আপডেট সময় ১২:৫৫:৪৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১০ মার্চ ২০২৩

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী সানি লিওন। ২০২২ সালের ১৬ নভেম্বর অভিনেত্রীসহ তার স্বামী ড্যানিয়েল এবং তাদের এক সহকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছিলেন এক ইভেন্ট ম্যানেজার।

তিনি অভিযোগ করেছিলেন, অনেক টাকা পারিশ্রমিক নিয়েও অনুষ্ঠানে এসে কোনো পারফর্ম করেননি সানি। আর এই ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে আনিত প্রতারণার অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন কেরালা হাইকোর্টের বিচারপতি বেচু কুরিয়েন থমাস।

তিনি বলেন, অকারণে হেনস্তা করার চেষ্টা চলছে অভিনেত্রী সানিকে। এর মধ্যে অপরাধ কোথায়, সেটাই বুঝতে পারছি না। এই মামলা বাতিল করার পক্ষে আমি। তবে তদন্ত যেন চলতে পারে, সে জন্য মামলার শুনানি চলবে। পরবর্তী মামলার শুনানি আগামী ৩১ মার্চ ঘোষণা করা হয়েছে।

ওই ঘটনায় তদন্তে দেখা গেছে, সানি পারফর্ম না করলেও, অভিযোগকারীর কোনো লোকসান হয়নি। সেই সঙ্গে অভিনেত্রীর পক্ষ থেকেও এমন ঘটনার কথা অস্বীকার করা হয়েছে। আর প্রমাণ হিসাবে যা পেশ করা হয়েছে, তা যথেষ্ট বলে মনে করেনি ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট। তাই উপযুক্ত প্রমাণের অভাবে মামলাটি সেখানেই বাতিল হয়ে যায়।