০৯:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

সাভারে ২৯ কিলোমিটার সড়কে যানজট

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১১:০৩:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৪৪ বার পড়া হয়েছে

পূর্বঘোষণা অনুযায়ী বৃহস্পতিবার (২০ এপ্রিল) পোশাক কারখানায় পবিত্র ঈদুল ফিতরের ছুটি হওয়ায় একযোগে বাড়ি ফিরছেন শ্রমিকরা। বিকেলের পর থেকে যানবাহন ও যাত্রীর চাপ বাড়তে থাকায় প্রথমে যানবাহনের ধীরগতির সৃষ্টি হয়। তবে সন্ধ্যা থেকে প্রায় ২৯ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

সন্ধ্যায় নবীনগর-চন্দ্রা, আব্দুল্লাহপুর-বাইপাইল ও ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে দেখে যায়, নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের নবীনগর থেকে চন্দ্রা পর্যন্ত প্রায় ১৮ কিলোমিটার সড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আব্দুল্লাহপুর-বাইপাইল সড়কের বাইপাইল থেকে জামগড়া পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের নবীনগর থেকে বিপিএটিসি স্কুল অ্যান্ড কলেজ পর্যন্ত প্রায় ৯ কিলোমিটার সড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

বিশমাইল থেকে সিরাজগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওনা দেওয়া এক যাত্রী বলেন, আমি বাড়ি ফেরার উদ্দেশ্যে বিশমাইল থেকে গাড়িতে উঠেছি। বিশমাইল থেকে পলাশবাড়ী পর্যন্ত পৌঁছাতে লেগেছে চার ঘণ্টা। সড়কে বিকেল থেকেই হালকা যানজট ছিল। কিন্তু সন্ধ্যায় ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। অসহ্য গরম আর যানজটে যে ভোগান্তি সীমাহীন।

বাইপাইল থেকে বগুড়ার উদ্দেশ্যে যাওয়া এক শ্রমিক বলেন, আমাদের কারখানা ছুটির পর বিকেল ৫টায় গাড়িতে উঠি। কিন্তু আমাদের গাড়ি এখনো জিরানীবাজার পার হতে পারেনি। সড়কে হঠাৎ ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের দুর্ভোগও বেড়েছে। ঢাকা জেলা উত্তর ট্রাফিক বিভাগের ইন্সপেক্টর (প্রশাসন) মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, গাড়ির চাপ আছে, তবে তেমন যানজট নেই। আছে যানবাহনের ধীরগতি। একটু আগে চাপ কম ছিল।

এখন একটু গাড়ির চাপ বেড়েছে। চন্দ্রায় গাড়ির চাপ একটু বেশি আছে। পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেছেন, আজকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের পর্যাপ্ত প্রস্তুতি রয়েছে। পর্যাপ্ত পুলিশ সড়কে যানজট নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। আশা করি, অন্যান্য বারের তুলনায় এবার ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন হবে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

সাভারে ২৯ কিলোমিটার সড়কে যানজট

আপডেট সময় ১১:০৩:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৩

পূর্বঘোষণা অনুযায়ী বৃহস্পতিবার (২০ এপ্রিল) পোশাক কারখানায় পবিত্র ঈদুল ফিতরের ছুটি হওয়ায় একযোগে বাড়ি ফিরছেন শ্রমিকরা। বিকেলের পর থেকে যানবাহন ও যাত্রীর চাপ বাড়তে থাকায় প্রথমে যানবাহনের ধীরগতির সৃষ্টি হয়। তবে সন্ধ্যা থেকে প্রায় ২৯ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

সন্ধ্যায় নবীনগর-চন্দ্রা, আব্দুল্লাহপুর-বাইপাইল ও ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে দেখে যায়, নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের নবীনগর থেকে চন্দ্রা পর্যন্ত প্রায় ১৮ কিলোমিটার সড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আব্দুল্লাহপুর-বাইপাইল সড়কের বাইপাইল থেকে জামগড়া পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের নবীনগর থেকে বিপিএটিসি স্কুল অ্যান্ড কলেজ পর্যন্ত প্রায় ৯ কিলোমিটার সড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

বিশমাইল থেকে সিরাজগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওনা দেওয়া এক যাত্রী বলেন, আমি বাড়ি ফেরার উদ্দেশ্যে বিশমাইল থেকে গাড়িতে উঠেছি। বিশমাইল থেকে পলাশবাড়ী পর্যন্ত পৌঁছাতে লেগেছে চার ঘণ্টা। সড়কে বিকেল থেকেই হালকা যানজট ছিল। কিন্তু সন্ধ্যায় ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। অসহ্য গরম আর যানজটে যে ভোগান্তি সীমাহীন।

বাইপাইল থেকে বগুড়ার উদ্দেশ্যে যাওয়া এক শ্রমিক বলেন, আমাদের কারখানা ছুটির পর বিকেল ৫টায় গাড়িতে উঠি। কিন্তু আমাদের গাড়ি এখনো জিরানীবাজার পার হতে পারেনি। সড়কে হঠাৎ ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। আমাদের দুর্ভোগও বেড়েছে। ঢাকা জেলা উত্তর ট্রাফিক বিভাগের ইন্সপেক্টর (প্রশাসন) মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, গাড়ির চাপ আছে, তবে তেমন যানজট নেই। আছে যানবাহনের ধীরগতি। একটু আগে চাপ কম ছিল।

এখন একটু গাড়ির চাপ বেড়েছে। চন্দ্রায় গাড়ির চাপ একটু বেশি আছে। পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেছেন, আজকের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের পর্যাপ্ত প্রস্তুতি রয়েছে। পর্যাপ্ত পুলিশ সড়কে যানজট নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। আশা করি, অন্যান্য বারের তুলনায় এবার ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন হবে।