০৬:২৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পণ্য বিক্রি নিষিদ্ধ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় ০৯:০৩:০৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • / ১৯৭ বার পড়া হয়েছে

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পণ্য বিক্রয় নিষিদ্ধ করেছে ইন্দোনেশিয়ার বাণিজ্যমন্ত্রী জুলকিফলি হাসান। বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) রাজধানী জাকার্তায় এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দেন। দেশটির বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গতকাল থেকে এই বাণিজ্য বিধি কার্যকর হয়েছে। সামাজিক মাধ্যমগুলো নতুন নিয়ম মেনে চলতে এক সপ্তাহ সময় পাবে।’ জানা যায়, ইন্দোনেশিয়ায় টিকটক শপ ও অন্যান্য প্ল্যাটফর্মে সস্তায় পণ্য বিক্রির ফলে অফলাইন বিক্রেতাদের ব্যবসা ও জীবিকা হুমকির মুখে পড়েছে। ফলে সাম্প্রতিক সময়ে সামাজিক মাধ্যম ও ই-কমার্স নিয়ন্ত্রণের আবেদন আরো জোরালো হয়। জুলকিফলি হাসান বলেন, ‘যেকোনো সরকার স্থানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের রক্ষা করবে। তাই ব্যবসায়িক প্রতিযোগিতায় সমতা রক্ষায় এই আইন পাস করা হয়েছে। এই আইনে সামাজিক মাধ্যমগুলো সরাসরি বাণিজ্য করতে পারবে না, তবে পণ্যের প্রচারণা চালাতে পারবে।’ তিনি বলেন, ‘সামাজিক মাধ্যমগুলো টিভি চ্যানেলের মতো বিজ্ঞাপন প্রচার করতে পারে। কিন্তু এখানে সরাসরি বাণিজ্য হওয়া উচিত নয়। তারা দোকান খুলতে পারে না, সরাসরি পণ্য বিক্রি করতে পারে না।’ ইন্দোনেশিয়া টিকটক শপের জন্য বিশ্বের বৃহত্তম বাজারগুলোর একটি। তবে ইন্দোনেশিয়া এই অঞ্চলের প্রথম দেশ যারা সামাজিক মাধ্যমের বাণিজ্য প্ল্যাটফর্মের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। এদিকে টিকটক ইন্দোনেশিয়ার এক মুখপাত্র বলেছেন, ‘এই নিষেধাজ্ঞার ফলে প্রায় ৬০ লাখ স্থানীয় বিক্রেতা ক্ষতিগ্রস্ত হবে, যারা তাদের পণ্য এই প্ল্যাটফর্মে বাজারজাত করে।’

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পণ্য বিক্রি নিষিদ্ধ

আপডেট সময় ০৯:০৩:০৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পণ্য বিক্রয় নিষিদ্ধ করেছে ইন্দোনেশিয়ার বাণিজ্যমন্ত্রী জুলকিফলি হাসান। বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) রাজধানী জাকার্তায় এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দেন। দেশটির বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গতকাল থেকে এই বাণিজ্য বিধি কার্যকর হয়েছে। সামাজিক মাধ্যমগুলো নতুন নিয়ম মেনে চলতে এক সপ্তাহ সময় পাবে।’ জানা যায়, ইন্দোনেশিয়ায় টিকটক শপ ও অন্যান্য প্ল্যাটফর্মে সস্তায় পণ্য বিক্রির ফলে অফলাইন বিক্রেতাদের ব্যবসা ও জীবিকা হুমকির মুখে পড়েছে। ফলে সাম্প্রতিক সময়ে সামাজিক মাধ্যম ও ই-কমার্স নিয়ন্ত্রণের আবেদন আরো জোরালো হয়। জুলকিফলি হাসান বলেন, ‘যেকোনো সরকার স্থানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের রক্ষা করবে। তাই ব্যবসায়িক প্রতিযোগিতায় সমতা রক্ষায় এই আইন পাস করা হয়েছে। এই আইনে সামাজিক মাধ্যমগুলো সরাসরি বাণিজ্য করতে পারবে না, তবে পণ্যের প্রচারণা চালাতে পারবে।’ তিনি বলেন, ‘সামাজিক মাধ্যমগুলো টিভি চ্যানেলের মতো বিজ্ঞাপন প্রচার করতে পারে। কিন্তু এখানে সরাসরি বাণিজ্য হওয়া উচিত নয়। তারা দোকান খুলতে পারে না, সরাসরি পণ্য বিক্রি করতে পারে না।’ ইন্দোনেশিয়া টিকটক শপের জন্য বিশ্বের বৃহত্তম বাজারগুলোর একটি। তবে ইন্দোনেশিয়া এই অঞ্চলের প্রথম দেশ যারা সামাজিক মাধ্যমের বাণিজ্য প্ল্যাটফর্মের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। এদিকে টিকটক ইন্দোনেশিয়ার এক মুখপাত্র বলেছেন, ‘এই নিষেধাজ্ঞার ফলে প্রায় ৬০ লাখ স্থানীয় বিক্রেতা ক্ষতিগ্রস্ত হবে, যারা তাদের পণ্য এই প্ল্যাটফর্মে বাজারজাত করে।’