১১:১২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪

সুন্দরবনে প্লাস্টিক ব্যবহার নিষিদ্ধ

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৭:২৯:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৮৮ বার পড়া হয়েছে

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন সম্প্রতি বলেছেন, সুন্দরবনে একবার ব্যবহার হয় এমন প্লাস্টিক ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে৷ এ ধরনের প্লাস্টিক ইতিমধ্যে বনের পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের অনেক ক্ষতি করছে।

সরকারি বনরক্ষক আবু নাসের মোহসিন হোসেন বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, পর্যটকরা বনে যাওয়ার সময় প্লাস্টিকের পানির বোতল, একবার ব্যবহার হয় এমন প্লাস্টিকের খাবার প্লেট, সফট ড্রিংকসের বোতল ও ক্যান নিয়ে যান৷ এগুলো পরিষ্কার করা কঠিন। সরকারি হিসেবে প্রতিবছর সুন্দরবনে প্রায় দুই লাখ পর্যটক যান৷ এছাড়া মাছ ধরতে জেলেরা আর মধু সংগ্রহকারীরা মাঝেমধ্যে বনে যান৷

পরিবেশবাদীরা সরকারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন৷ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিজ্ঞানের অধ্যাপক মনিরুল খান বলেন, সুন্দরবনের পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে৷ তিনি বলেন, প্লাস্টিক দূষণের বিশালতা চোখে যতটা দেখা যায়, তার চেয়েও বেশি, কারণ বন্যপ্রাণীরা অনেক সময় এসব প্লাস্টিক খেয়ে ফেলে৷

ইউনেস্কো ১৯৯৭ সালে সুন্দরবনের একটি অংশকে বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ ঘোষণা করে৷ সুন্দরবনের কাছে চালু হওয়া রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রও সুন্দরবনের ইকোসিস্টেমের জন্য হুমকি বলে মনে করেন, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের মহাসচিব শরিফ জামিল৷ তিনি বলেন, সরকারের উচিত বনের মধ্য দিয়ে যাওয়া নদী দিয়ে কয়লা পরিবহণ বন্ধ করা৷

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

সুন্দরবনে প্লাস্টিক ব্যবহার নিষিদ্ধ

আপডেট সময় ০৭:২৯:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১ এপ্রিল ২০২৩

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন সম্প্রতি বলেছেন, সুন্দরবনে একবার ব্যবহার হয় এমন প্লাস্টিক ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে৷ এ ধরনের প্লাস্টিক ইতিমধ্যে বনের পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের অনেক ক্ষতি করছে।

সরকারি বনরক্ষক আবু নাসের মোহসিন হোসেন বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, পর্যটকরা বনে যাওয়ার সময় প্লাস্টিকের পানির বোতল, একবার ব্যবহার হয় এমন প্লাস্টিকের খাবার প্লেট, সফট ড্রিংকসের বোতল ও ক্যান নিয়ে যান৷ এগুলো পরিষ্কার করা কঠিন। সরকারি হিসেবে প্রতিবছর সুন্দরবনে প্রায় দুই লাখ পর্যটক যান৷ এছাড়া মাছ ধরতে জেলেরা আর মধু সংগ্রহকারীরা মাঝেমধ্যে বনে যান৷

পরিবেশবাদীরা সরকারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন৷ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিজ্ঞানের অধ্যাপক মনিরুল খান বলেন, সুন্দরবনের পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে৷ তিনি বলেন, প্লাস্টিক দূষণের বিশালতা চোখে যতটা দেখা যায়, তার চেয়েও বেশি, কারণ বন্যপ্রাণীরা অনেক সময় এসব প্লাস্টিক খেয়ে ফেলে৷

ইউনেস্কো ১৯৯৭ সালে সুন্দরবনের একটি অংশকে বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ ঘোষণা করে৷ সুন্দরবনের কাছে চালু হওয়া রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রও সুন্দরবনের ইকোসিস্টেমের জন্য হুমকি বলে মনে করেন, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের মহাসচিব শরিফ জামিল৷ তিনি বলেন, সরকারের উচিত বনের মধ্য দিয়ে যাওয়া নদী দিয়ে কয়লা পরিবহণ বন্ধ করা৷