০২:১২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

হজ নিবন্ধনের ক্ষেত্রে আগের সিদ্ধান্ত বদলাল ধর্ম মন্ত্রণালয়

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১১:৩৩:১০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ মার্চ ২০২৩
  • / ৭৬ বার পড়া হয়েছে

হজের নিবন্ধনের সময় না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। তৃতীয় দফা সময় বাড়িয়েও হজের নির্ধারিত কোটা পূরণ হয়নি। এ জন্য চলতি বছর হজে যেতে নিবন্ধনের সময় চতুর্থ দফায় আরও পাঁচ দিন বাড়ানো হয়েছে। অর্থাৎ আগামী ২১ মার্চ পর্যন্ত হজযাত্রী নিবন্ধন করা যাবে। এতে পূর্বের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নতুন সময় বৃদ্ধি পেল।

বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর আগে গত ৭ মার্চ এক বিজ্ঞপ্তিতে ৯ দিন সময় বাড়ানোর তথ্য জানানো হয়েছিল। হজযাত্রীদের বিশেষ অনুরোধে শেষবারের মতো সময় বাড়ানো হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, কোটা পূর্ণ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নিবন্ধন সার্ভার স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যাবে।

নিবন্ধন ভাউচার প্রস্তুতের পরবর্তী দুই কার্যদিবসের মধ্যে অর্থ ব্যাংকে জমা দিয়ে নিবন্ধন নিশ্চিত না করলে ওই ভাউচার স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাতিল হয়ে যাবে বলেও জানানো হয়। আগামী ২১ মার্চের মধ্যে হজ কার্যক্রম পরিচালনাকারী সব ব্যাংককে অফিস সময়ের পরও প্রস্তুতকৃত ভাউচারগুলোর অর্থ পরিশোধ না হওয়া পর্যন্ত ব্যাংকের শাখাসমূহ খোলা রাখার জন্য অনুরোধ করেছে মন্ত্রণালয়।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টা পর্যন্ত হজে যেতে চূড়ান্তভাবে নিবন্ধন করেছেন মাত্র ১ লাখ ১০ হাজার ৮২২ জন। এ হিসাবে এখন পর্যন্ত ১৬ হাজার ৩৭৬ হজযাত্রীর কোটা খালি রয়েছে। এর মধ্যে সরকারিতে এখনো খালি রয়েছে ৫ হাজার ৩১৭ জন। আর বেসরকারিতে  নিবন্ধনের বাকি রয়েছে ১১ হাজার ৫৯ জন।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ-১ শাখার নির্দেশনা অনুযায়ী প্রাক-নিবন্ধনকারীদের হজের চূড়ান্ত নিবন্ধনের শেষ তারিখ ছিল গত ২৩ ফেব্রুয়ারি। প্রথম দফায় এই মেয়াদ ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাড়ানো হয়। কিন্তু কোটা পূরণ না হওয়ায় দ্বিতীয় দফায় ৭ মার্চ, তৃতীয় দফায় ১৬ মার্চ এবং সব শেষ ২১ মার্চ পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। তবে মন্ত্রণালয় স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, এবার আর সময় বৃদ্ধি করা হবে না।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

হজ নিবন্ধনের ক্ষেত্রে আগের সিদ্ধান্ত বদলাল ধর্ম মন্ত্রণালয়

আপডেট সময় ১১:৩৩:১০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৭ মার্চ ২০২৩

হজের নিবন্ধনের সময় না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। তৃতীয় দফা সময় বাড়িয়েও হজের নির্ধারিত কোটা পূরণ হয়নি। এ জন্য চলতি বছর হজে যেতে নিবন্ধনের সময় চতুর্থ দফায় আরও পাঁচ দিন বাড়ানো হয়েছে। অর্থাৎ আগামী ২১ মার্চ পর্যন্ত হজযাত্রী নিবন্ধন করা যাবে। এতে পূর্বের সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে নতুন সময় বৃদ্ধি পেল।

বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এর আগে গত ৭ মার্চ এক বিজ্ঞপ্তিতে ৯ দিন সময় বাড়ানোর তথ্য জানানো হয়েছিল। হজযাত্রীদের বিশেষ অনুরোধে শেষবারের মতো সময় বাড়ানো হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, কোটা পূর্ণ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নিবন্ধন সার্ভার স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যাবে।

নিবন্ধন ভাউচার প্রস্তুতের পরবর্তী দুই কার্যদিবসের মধ্যে অর্থ ব্যাংকে জমা দিয়ে নিবন্ধন নিশ্চিত না করলে ওই ভাউচার স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাতিল হয়ে যাবে বলেও জানানো হয়। আগামী ২১ মার্চের মধ্যে হজ কার্যক্রম পরিচালনাকারী সব ব্যাংককে অফিস সময়ের পরও প্রস্তুতকৃত ভাউচারগুলোর অর্থ পরিশোধ না হওয়া পর্যন্ত ব্যাংকের শাখাসমূহ খোলা রাখার জন্য অনুরোধ করেছে মন্ত্রণালয়।

বৃহস্পতিবার রাত ৮টা পর্যন্ত হজে যেতে চূড়ান্তভাবে নিবন্ধন করেছেন মাত্র ১ লাখ ১০ হাজার ৮২২ জন। এ হিসাবে এখন পর্যন্ত ১৬ হাজার ৩৭৬ হজযাত্রীর কোটা খালি রয়েছে। এর মধ্যে সরকারিতে এখনো খালি রয়েছে ৫ হাজার ৩১৭ জন। আর বেসরকারিতে  নিবন্ধনের বাকি রয়েছে ১১ হাজার ৫৯ জন।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ-১ শাখার নির্দেশনা অনুযায়ী প্রাক-নিবন্ধনকারীদের হজের চূড়ান্ত নিবন্ধনের শেষ তারিখ ছিল গত ২৩ ফেব্রুয়ারি। প্রথম দফায় এই মেয়াদ ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাড়ানো হয়। কিন্তু কোটা পূরণ না হওয়ায় দ্বিতীয় দফায় ৭ মার্চ, তৃতীয় দফায় ১৬ মার্চ এবং সব শেষ ২১ মার্চ পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। তবে মন্ত্রণালয় স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, এবার আর সময় বৃদ্ধি করা হবে না।