০৬:৩০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪

হাসপাতালে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা শুরু

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ১০:১৮:৩২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৬৬ বার পড়া হয়েছে

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন। শনিবার (২৯ এপ্রিল) রাতে বিএনপি নেত্রীকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করার পর সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান।

ডা. জাহিদ হোসেন বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা যাতে আরও খারাপের দিকে না যায় সে জন্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চিকিৎসকরা পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে সিদ্ধান্ত দেবেন। সেই অনুযায়ী চিকিৎসা চলবে। ইতিমধ্যে মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা পরীক্ষা করেছেন। চিকিৎসাও শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন, বেগম জিয়ার লিভার ও কিডনি জটিলতা রয়েছে। মেডিকেল বোর্ড তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিল। কিন্তু যেহেতু তিনি বিদেশে যেতে পারছেন না। তাই এই অবস্থায় তাকে আবারও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে এত প্রতিকূলতার মধ্যেও তিনি মানসিক শক্তি ধরে রেখেছেন। তার সুচিকিৎসার ব্যাপারে চিকিৎসক এবং আমরা সবাই আশাবাদী।

এর আগে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য এভারকেয়ার হাসপাতালে যান খালেদা জিয়া। তিনি দীর্ঘদিন ধরে আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, লিভার, ফুসফুস, চোখের সমস্যাসহ নানা শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন। অসুস্থতা বাড়লে মাঝেমধ্যে তাকে হাসপাতালে নিতে হয়। বর্তমানে গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা চলছে।

দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হয়ে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি কারাগারে যান বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। করোনা মহামারি শুরুর পর ২০২০ সালের ২৫ মার্চ শর্তসাপেক্ষে বিএনপি নেত্রীর সাজা স্থগিত করে সাময়িক মুক্তি দেয় সরকার। এ পর্যন্ত ছয় দফায় খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

হাসপাতালে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা শুরু

আপডেট সময় ১০:১৮:৩২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৩০ এপ্রিল ২০২৩

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন। শনিবার (২৯ এপ্রিল) রাতে বিএনপি নেত্রীকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করার পর সাংবাদিকদের তিনি এ তথ্য জানান।

ডা. জাহিদ হোসেন বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা যাতে আরও খারাপের দিকে না যায় সে জন্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চিকিৎসকরা পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে সিদ্ধান্ত দেবেন। সেই অনুযায়ী চিকিৎসা চলবে। ইতিমধ্যে মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা পরীক্ষা করেছেন। চিকিৎসাও শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন, বেগম জিয়ার লিভার ও কিডনি জটিলতা রয়েছে। মেডিকেল বোর্ড তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিল। কিন্তু যেহেতু তিনি বিদেশে যেতে পারছেন না। তাই এই অবস্থায় তাকে আবারও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে এত প্রতিকূলতার মধ্যেও তিনি মানসিক শক্তি ধরে রেখেছেন। তার সুচিকিৎসার ব্যাপারে চিকিৎসক এবং আমরা সবাই আশাবাদী।

এর আগে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য এভারকেয়ার হাসপাতালে যান খালেদা জিয়া। তিনি দীর্ঘদিন ধরে আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, লিভার, ফুসফুস, চোখের সমস্যাসহ নানা শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন। অসুস্থতা বাড়লে মাঝেমধ্যে তাকে হাসপাতালে নিতে হয়। বর্তমানে গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা চলছে।

দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হয়ে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি কারাগারে যান বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। করোনা মহামারি শুরুর পর ২০২০ সালের ২৫ মার্চ শর্তসাপেক্ষে বিএনপি নেত্রীর সাজা স্থগিত করে সাময়িক মুক্তি দেয় সরকার। এ পর্যন্ত ছয় দফায় খালেদা জিয়ার মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।