১০:২৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪

হাসানের পাঁচ উইকেট, সিরিজ জয়ে টাইগারদের লক্ষ্য ১০২

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৫:২০:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ ২০২৩
  • / ৬৮ বার পড়া হয়েছে

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে একাদশে ছিলেন না হাসান মাহমুদ। দ্বিতীয় ম্যাচে কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমানের বদলি হিসেবে জায়গা পান তিনি। তবে বৃষ্টিতে ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়ে যাওয়ায় বোলিং করতেই পারেননি তিনি। তবে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে ম্যাচে এসেই আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে প্রথম পাঁচ উইকেটের দেখা পেয়ে গেলেন এই মিডিয়াম পেসার।

এদিন আয়ারল্যান্ডের ইনিংসে টপ-অর্ডারের প্রথম তিন ব্যাটারকে ফিরিয়েছিলেন হাসান। ডেথ ওভারে এসে আইরিশদের সেট ব্যাটার ও সর্বোচ্চ সংগ্রাহক কার্টিশ ক্যাম্ফারের উইকেটও তুলে নেন তিনি। এরপর আইরিশদের ইনিংসে শেষ আঘাতটাও হানলেন মিডিয়াম এই পেসার। তার আগুনে বোলিংয়ের সাথে তাসকিন আহমেদের ৩ ও এবাদত হোসেনের ২ উইকেটে ২৮.১ ওভারে মাত্র ১০১ রানেই গুঁটিয়ে গেছে সফরকারীরা।

বৃহস্পতিবার (২৩ মার্চ) সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে ম্যাচের শুরুতে টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন আইরিশ অধিনায়ক অ্যান্ডি বালবার্নি। ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই আইরিশ দুই ওপেনার একটু সতর্ক হয়েই শুরু করেছিলেন। কিন্তু বাংলাদেশের পেসার হাসান মাহমুদের বোলিং তোপের মুখে পড়ে আয়ারল্যান্ড।

ইনিংসের পঞ্চম ওভারে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন মিডিয়াম এই পেসার। দলীয় ১২ রানে হাসান মাহমুদের বলে ব্যাটের কোনায় লেগে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন স্টিফেন দোহানি। ২১ বল খেলে ৮ রান করে বিদায় নেন এই ওপেনার। এরপর ইনিংসের নবম ওভারে আরেক ওপেনার পল স্টার্লিংকে এলবিডব্লিউর শিকার করেন হাসান মাহমুদ। দলীয় ২২ রানের মাথায় ১২ বলে ৭ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি।

একই ওভারের চতুর্থ বলে আইরিশদের টপ অর্ডার হ্যারি টেকটরকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে ত্রাস সৃষ্টি করেছেন ডানহাতি এই মিডিয়াম পেসার। এরই মধ্যে তাসকিনের বলে একটি এবং হাসান মাহমুদের বলে আরও একটি ক্যাচ মিস হয়। তবে ঠিকই জ্বলে উঠেছেন দেশসেরা পেসার তাসকিন আহমেদ। ইনিংসের দশম ওভারে আইরিশ কাপ্তান অ্যান্ডি বালবির্নিকে প্রথম স্লিপে থাকা নাজমুল হোসেন শান্তর হাতে ক্যাচ দিলে দলীয় ২৬ রান তুলতেই চারটি উইকেট হারিয়েছে আইরিশরা।

এরপর কার্টিশ ক্যাম্ফার আর লরকান টাকার ৫৭ বলে ৪২ রানের জুটি গড়ে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। তবে এবাদত হোসেন টানা দুই বলে উইকেট তুলে নিলে আবারও ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। ইনিংসের ১৯তম ওভারে ৩১ বলে ২৮ করা সেট ব্যাটার লরকান টাকারকে দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে এলবিডব্লিউ করেন এবাদত। আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অসন্তুষ্ঠ হয়ে রিভিউ নিয়ে নেন টাকার। তবে কোনো লাভ হয়নি সফরকারীরাদের। সোজা প্যাভিলিয়নের পথে হাটা ধরেন তিনি।

পরের বলে জর্জ ডকরেলকে দাঁড়ানোর আগেই বোল্ড করে গোল্ডেন ডাক উপহার দেন এবাদত। একের পর এক উইকেট হারিয়ে অল্পতেই গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় পড়ে আয়ারল্যান্ড। এরপর দলীয় ৭৯ রানের মাথায় তাসকিন আহমেদের করা ২২তম ওভারে তিন বলের ব্যবধানে দুই শিকার করে বাংলাদেশ।

বিস্তারিত আসছে…

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

হাসানের পাঁচ উইকেট, সিরিজ জয়ে টাইগারদের লক্ষ্য ১০২

আপডেট সময় ০৫:২০:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ ২০২৩

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচে একাদশে ছিলেন না হাসান মাহমুদ। দ্বিতীয় ম্যাচে কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমানের বদলি হিসেবে জায়গা পান তিনি। তবে বৃষ্টিতে ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়ে যাওয়ায় বোলিং করতেই পারেননি তিনি। তবে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে ম্যাচে এসেই আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে প্রথম পাঁচ উইকেটের দেখা পেয়ে গেলেন এই মিডিয়াম পেসার।

এদিন আয়ারল্যান্ডের ইনিংসে টপ-অর্ডারের প্রথম তিন ব্যাটারকে ফিরিয়েছিলেন হাসান। ডেথ ওভারে এসে আইরিশদের সেট ব্যাটার ও সর্বোচ্চ সংগ্রাহক কার্টিশ ক্যাম্ফারের উইকেটও তুলে নেন তিনি। এরপর আইরিশদের ইনিংসে শেষ আঘাতটাও হানলেন মিডিয়াম এই পেসার। তার আগুনে বোলিংয়ের সাথে তাসকিন আহমেদের ৩ ও এবাদত হোসেনের ২ উইকেটে ২৮.১ ওভারে মাত্র ১০১ রানেই গুঁটিয়ে গেছে সফরকারীরা।

বৃহস্পতিবার (২৩ মার্চ) সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে ম্যাচের শুরুতে টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন আইরিশ অধিনায়ক অ্যান্ডি বালবার্নি। ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই আইরিশ দুই ওপেনার একটু সতর্ক হয়েই শুরু করেছিলেন। কিন্তু বাংলাদেশের পেসার হাসান মাহমুদের বোলিং তোপের মুখে পড়ে আয়ারল্যান্ড।

ইনিংসের পঞ্চম ওভারে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন মিডিয়াম এই পেসার। দলীয় ১২ রানে হাসান মাহমুদের বলে ব্যাটের কোনায় লেগে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন স্টিফেন দোহানি। ২১ বল খেলে ৮ রান করে বিদায় নেন এই ওপেনার। এরপর ইনিংসের নবম ওভারে আরেক ওপেনার পল স্টার্লিংকে এলবিডব্লিউর শিকার করেন হাসান মাহমুদ। দলীয় ২২ রানের মাথায় ১২ বলে ৭ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি।

একই ওভারের চতুর্থ বলে আইরিশদের টপ অর্ডার হ্যারি টেকটরকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলে ত্রাস সৃষ্টি করেছেন ডানহাতি এই মিডিয়াম পেসার। এরই মধ্যে তাসকিনের বলে একটি এবং হাসান মাহমুদের বলে আরও একটি ক্যাচ মিস হয়। তবে ঠিকই জ্বলে উঠেছেন দেশসেরা পেসার তাসকিন আহমেদ। ইনিংসের দশম ওভারে আইরিশ কাপ্তান অ্যান্ডি বালবির্নিকে প্রথম স্লিপে থাকা নাজমুল হোসেন শান্তর হাতে ক্যাচ দিলে দলীয় ২৬ রান তুলতেই চারটি উইকেট হারিয়েছে আইরিশরা।

এরপর কার্টিশ ক্যাম্ফার আর লরকান টাকার ৫৭ বলে ৪২ রানের জুটি গড়ে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। তবে এবাদত হোসেন টানা দুই বলে উইকেট তুলে নিলে আবারও ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। ইনিংসের ১৯তম ওভারে ৩১ বলে ২৮ করা সেট ব্যাটার লরকান টাকারকে দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে এলবিডব্লিউ করেন এবাদত। আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে অসন্তুষ্ঠ হয়ে রিভিউ নিয়ে নেন টাকার। তবে কোনো লাভ হয়নি সফরকারীরাদের। সোজা প্যাভিলিয়নের পথে হাটা ধরেন তিনি।

পরের বলে জর্জ ডকরেলকে দাঁড়ানোর আগেই বোল্ড করে গোল্ডেন ডাক উপহার দেন এবাদত। একের পর এক উইকেট হারিয়ে অল্পতেই গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় পড়ে আয়ারল্যান্ড। এরপর দলীয় ৭৯ রানের মাথায় তাসকিন আহমেদের করা ২২তম ওভারে তিন বলের ব্যবধানে দুই শিকার করে বাংলাদেশ।

বিস্তারিত আসছে…