০৪:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

‘হ্যাকাররা তেমন কোনো তথ্যও নিতে পারেনি’

নিজস্ব সংবাদ দাতা
  • আপডেট সময় ০৭:৪২:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মার্চ ২০২৩
  • / ৬৮ বার পড়া হয়েছে

বিমানের কাছে হ্যাকারদের টাকা দাবি সত্য নয় বলে দাবি করেছেন বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী। তিনি বলেন, টাকা দাবি করার মতো তথ্য আমাদের কাছে নেই। তারা তেমন কোনো তথ্যও নিতে পারেনি। তারা (হ্যাকার) ফায়ার ওয়ালের মধ্যে ঢুকতে পারেনি। তেমন ক্ষতি করতে পারেনি। অ্যাটাক হয়েছে এটাই একটা ক্ষতি।

এ ঘটনার তদন্ত চলছে বলে জানান তিনি। রোববার (২৬ মার্চ) রাজধানীর একটি হোটেলে ‘মুজিবের বাংলাদেশ’ স্মারক গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব দাবি করেন।গত শুক্রবার (১৭ মার্চ) র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণের শিকার হয় বাংলাদেশ বিমানের ই-মেইল সার্ভার। এরপর বিমানের কাছে ৫০ লাখ ডলার চাওয়ার খবর প্রকাশিত হয়।

হ্যাকারদের দাবি তারা বিমানের ১০০ গিগাবাইটের বেশি ব্যক্তিগত ও গোপনীয় তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে। বিমানের অভ্যন্তরীণ নেটওয়ার্ক থেকে অনেক তথ্য-উপাত্ত তারা ডাউনলোড করে রাখার দাবিও করে। তাদরে দাবি অনুযায়ী টাকা না দিলে নিজেদের ব্লগে এগুলো প্রকাশ করে দেওয়ার হুমকি দেয় হ্যাকাররা। এরই মধ্যে পাঁচদিন পার হয়েছে। তারা কোনো কিছু প্রকাশ না করলেও এখন পর্যন্ত বিমানের ই-মেইল সার্ভার উদ্ধার করতে সক্ষম হয়নি কর্তৃপক্ষ।

তবে রোববার (২৬ মার্চ) বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, বিমানের ই-মেইল সার্ভার হ্যাক করে ৫০ লাখ ডলার দাবি করার বিষয়টি সঠিক নয়। এ ধরনের তথ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে নেই। তবে এ ঘটনায় কারো গাফিলতি আছে কি না, সে বিষয়ে তদন্ত চলছে। হ্যাকারদের থেকে সাইট উদ্ধারে কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে বিমান প্রতিমন্ত্রী বলেন, যে যে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার নেওয়া হয়েছে। জিডি করা হয়েছে।

বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিউল আজিম বলেন, বিষয়টি আমাদের নলেজে এলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছি। আইনুযায়ী ডিজিটাল সিকিউরিটি বিভাগকে জানিয়েছি, তাদের টিম পরিদর্শন করেছে। আইসিটি মন্ত্রণালয়ের সাথে সমন্বিতভাবে আমরা কাজ করব। শফিউল আজিম বলেন, আমাদের অপারেশনে সমস্যা হয়নি, আজকেও আমাদের কাজ চলছে। আমাদের বড় ধরনের ক্ষতি হয়নি। আইসিটি মন্ত্রণালয় থেকে এ ব্যাপারে তেমন সতর্ক করা হয়নি।

কীভাবে এ ধরনের ঘটনা ঠেকানো যায় সেটা নিয়ে কার্যক্রম চলমান। গাফিলতি যদি থেকে থাকে তাহলে কমিয়ে আনা হবে বলেও জানান বিমানের এমডি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোকাম্মেল হোসেন, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সাবেক মুখ্যসচিব কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী। আলোচক হিসেবে বক্তব্য দেন কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক।

ট্যাগস

নিউজটি শেয়ার করুন

‘হ্যাকাররা তেমন কোনো তথ্যও নিতে পারেনি’

আপডেট সময় ০৭:৪২:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মার্চ ২০২৩

বিমানের কাছে হ্যাকারদের টাকা দাবি সত্য নয় বলে দাবি করেছেন বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী। তিনি বলেন, টাকা দাবি করার মতো তথ্য আমাদের কাছে নেই। তারা তেমন কোনো তথ্যও নিতে পারেনি। তারা (হ্যাকার) ফায়ার ওয়ালের মধ্যে ঢুকতে পারেনি। তেমন ক্ষতি করতে পারেনি। অ্যাটাক হয়েছে এটাই একটা ক্ষতি।

এ ঘটনার তদন্ত চলছে বলে জানান তিনি। রোববার (২৬ মার্চ) রাজধানীর একটি হোটেলে ‘মুজিবের বাংলাদেশ’ স্মারক গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব দাবি করেন।গত শুক্রবার (১৭ মার্চ) র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণের শিকার হয় বাংলাদেশ বিমানের ই-মেইল সার্ভার। এরপর বিমানের কাছে ৫০ লাখ ডলার চাওয়ার খবর প্রকাশিত হয়।

হ্যাকারদের দাবি তারা বিমানের ১০০ গিগাবাইটের বেশি ব্যক্তিগত ও গোপনীয় তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে। বিমানের অভ্যন্তরীণ নেটওয়ার্ক থেকে অনেক তথ্য-উপাত্ত তারা ডাউনলোড করে রাখার দাবিও করে। তাদরে দাবি অনুযায়ী টাকা না দিলে নিজেদের ব্লগে এগুলো প্রকাশ করে দেওয়ার হুমকি দেয় হ্যাকাররা। এরই মধ্যে পাঁচদিন পার হয়েছে। তারা কোনো কিছু প্রকাশ না করলেও এখন পর্যন্ত বিমানের ই-মেইল সার্ভার উদ্ধার করতে সক্ষম হয়নি কর্তৃপক্ষ।

তবে রোববার (২৬ মার্চ) বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, বিমানের ই-মেইল সার্ভার হ্যাক করে ৫০ লাখ ডলার দাবি করার বিষয়টি সঠিক নয়। এ ধরনের তথ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে নেই। তবে এ ঘটনায় কারো গাফিলতি আছে কি না, সে বিষয়ে তদন্ত চলছে। হ্যাকারদের থেকে সাইট উদ্ধারে কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে বিমান প্রতিমন্ত্রী বলেন, যে যে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার নেওয়া হয়েছে। জিডি করা হয়েছে।

বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শফিউল আজিম বলেন, বিষয়টি আমাদের নলেজে এলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছি। আইনুযায়ী ডিজিটাল সিকিউরিটি বিভাগকে জানিয়েছি, তাদের টিম পরিদর্শন করেছে। আইসিটি মন্ত্রণালয়ের সাথে সমন্বিতভাবে আমরা কাজ করব। শফিউল আজিম বলেন, আমাদের অপারেশনে সমস্যা হয়নি, আজকেও আমাদের কাজ চলছে। আমাদের বড় ধরনের ক্ষতি হয়নি। আইসিটি মন্ত্রণালয় থেকে এ ব্যাপারে তেমন সতর্ক করা হয়নি।

কীভাবে এ ধরনের ঘটনা ঠেকানো যায় সেটা নিয়ে কার্যক্রম চলমান। গাফিলতি যদি থেকে থাকে তাহলে কমিয়ে আনা হবে বলেও জানান বিমানের এমডি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোকাম্মেল হোসেন, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সাবেক মুখ্যসচিব কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী। আলোচক হিসেবে বক্তব্য দেন কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক।